ব্যাংকের মুনাফা বেড়েছে এই করোনা কালেও

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২ জুলাই ২০২১, ০৮:৫৬ |  আপডেট  : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২১:২৭

বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের মধ্যেও ২০২১ সালের প্রথম ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন) অধিকাংশ ব্যাংকের পরিচালন মুনাফা বেড়েছে। বিভিন্ন ধরনের নীতি সহায়তা আর আমদানি-রফতানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এ মুনাফা বলছেন সংশ্লিষ্টরা।

তাদের মতে, বিশেষ পুনঃতফসিল সুবিধায় উল্লেখযোগ্য পরিমাণের খেলাপি ঋণ নিয়মিত হওয়ায় চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন) পরিচালন মুনাফা বেড়েছে।

তবে পরিচালন মুনাফা ব্যাংকের প্রকৃত মুনাফা নয়। পরিচালন মুনাফা থেকে ঋণের বিপরীতে নির্ধারিত হারে নিরাপত্তা সঞ্চিতি (প্রভিশন) সংরক্ষণ এবং সাড়ে ৩৭ শতাংশ হারে করপোরেট কর পরিশোধের পর ব্যাংকগুলোর নিট মুনাফার হিসাব হয়। নিট মুনাফার ওপর ভিত্তি করে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলো সাধারণ শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ দিয়ে থাকে।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, অন্যান্য বছরের মতো এবারও বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মুনাফা করেছে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড। ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত প্রথম ছয় মাসে এক হাজার ২০ কোটি টাকা মুনাফা করেছে ইসলামী ব্যাংক, গত বছরের (২০২০ সাল) একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল এক হাজার সাত কোটি। এ হিসাবে গত বছরের তুলনায় ১৩ কোটি টাকা বেশি মুনাফা করেছে ব্যাংকটি। ইসলামী ব্যাংকের পরেই রয়েছে দ্বিতীয় প্রজন্মের সাউথইস্ট ব্যাংক। ছয় মাসে ব্যাংকের পরিচালন মুনাফার পরিমাণ ৪৭২ কোটি। ব্যাংকটির আগের বছরের একই সময়ে পরিচালন মুনাফা ছিল ৩৪২ কোটি টাকা।

এছাড়াও বছরের প্রথম ছয় মাসে প্রিমিয়ার ব্যাংকের পরিচালন মুনাফার পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪০৮ কোটি টাকা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩৪৬ কোটি টাকা। তালিকায় এর পরের অবস্থান মার্কেন্টাইল ব্যাংকের। ছয় মাসে মার্কেন্টাইল ব্যাংকের মুনাফা ৩৫৮ কোটি টাকা, যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ২৪৩ কোটি টাকা। সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের মুনাফা হয়েছে ২২৭ কোটি, যা তার আগের বছর ছিল ১৭৫ কোটি।

বছরের প্রথম ছয় মাসে এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের মুনাফা হয়েছে ১৫০ কোটি টাকা। আগের বছরের একই সময়ে পরিচালন মুনাফা ছিল ৯১ কোটি টাকা। এক্সিম ব্যাংক পরিচালন মুনাফা করেছে ৩৪০ কোটি টাকা, যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ৩২৭ কোটি টাকা। আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের ৩১০ কোটি টাকা, গত বছরের একই সময়ে ছিল ৩০৫ কোটি টাকা। ঢাকা ব্যাংকের মুনাফা হয়েছে ৩১০ কোটি টাকা, যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ২৬৩ কোটি টাকা।

বছরের প্রথম ছয় মাসে যমুনা ব্যাংক মুনাফা করেছে ৩০১ কোটি টাকা। গত বছরের একই সময়ে ছিল ২৬২ কোটি টাকা। প্রিমিয়ার ব্যাংকের পরিচালন মুনাফা হয়েছে ৩০০ কোটি টাকা, গত বছরের একই সময়ে ছিল ১৮৬ কোটি টাকা। ব্যাংক এশিয়া ৪৮৩ কোটি টাকার মুনাফা করেছে, গত বছর যা ছিল ৩৫৩ কোটি টাকা। আর চতুর্থ প্রজন্মের সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংকের মুনাফা হয়েছে ৮০ কোটি টাকা, যা গত বছরের একই ছিল ৭০ কোটি টাকা। এছাড়াও বিদেশি ব্যাংকের মধ্যে মৃতপ্রায় ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তানের পরিচালন মুনাফা হয়েছে ২১ কোটি টাকা। তাদের গত বছরের একই সময়ে পরিচালন মুনাফার পরিমাণ ছিল ২২ কোটি টাকা।

ঢাকা ব্যাংকের মুনাফা হয়েছে ৩১০ কোটি টাকা, গত বছরের একই সময়ে এর পরিমাণ ছিল ২৬৩ কোটি টাকা। যমুনা ব্যাংক পরিচালন মুনাফা করেছে ৩০১ কোটি টাকা, যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ২৬২ কোটি টাকা।

ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ বছরের করোনা পরিস্থিতি অনেকটাই ভালো ছিল। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সুবিধায় গ্রাহক টাকা পরিশোধ না করেও নিয়মিত হয়েছেন। গত বছরের প্রথম ছয় মাসের তুলনায় এ বছরের একই সময়ে আমদানি-রফতানির নতুন মাত্রা পেয়েছে। এসব কারণে ব্যাংকগুলো ভালো মুনাফা করেছে।

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত