বাংলাদেশের পরিস্থিতি শ্রীলঙ্কার মতো চায় কারা?

  বিভুরঞ্জন সরকার

প্রকাশ: ১৮ মে ২০২২, ১১:১৭ |  আপডেট  : ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:৪২

ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকটের পথ ধরে শ্রীলঙ্কায় রাজনৈতিক সংকটও তীব্র হয়ে উঠেছে। শ্রীলঙ্কা কেন এই অবস্থায় পড়লো তা নিয়ে নানা ধরনের ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ চলছে। এটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। খাদ্য, জ্বালানি ও ওষুধের তীব্র ঘাটতি দেশটির জনগণকে ক্ষুব্ধ করে তুলেছে। সরকারের বিরুদ্ধে চলছে সহিংস আন্দোলন। প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করে নতুন প্রধানমন্ত্রী শপথ নেওয়ার পরও পরিস্থিতির তেমন উন্নতি হয়নি।

দক্ষিণ এশিয়ার একসময় সমৃদ্ধ ও শিক্ষায় উনত দেশটির বর্তমান দুর্দশার জন্য বেশ কয়েকটি কারণের উল্লেখ করেছে বার্তা সংস্থা এএফপি। এএফপির বিশ্লেষণ অনুযায়ী বর্তমান অবস্থার জন্য আরও অনেক কারণের একটি হলো চীনা ঋণ। এছাড়া কৃষি ও অর্থনীতিতে সরকারের ভুল নীতি, কোভিড মহামারির কারণে তৈরি বাস্তবতা ইত্যাদি। তবে একসঙ্গে অনেকেই শ্রীলঙ্কায় কর্তৃত্ববাদী পারিবারিক শাসনকেও অঘটনের বড় কারণ বলে মনে করছেন।

চীনের কাছ থেকে বিপুল ঋণ নিয়ে বড় বড় প্রকল্পে হাত দিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। ২০১০ সালে নভেম্বরের চীনা ঋণে হামবানটোটা গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ করে শ্রীলঙ্কা। এ বন্দরে ছয় বছরে ৩০ কোটি ডলার লোকসান হয়। এই সমুদ্রবন্দর ছাড়াও চীনের ঋণে শ্রীলঙ্কা বিশাল কনফারেন্স সেন্টার নির্মাণ করেছিল। এটি চালুর পর থেকেই অব্যবহৃত পড়ে রয়েছে।

চীনের কাছ থেকে নেওয়া ২০ কোটি ডলার ব্যয়ে একটি বিমানবন্দর চালু করা হয়েছিল। একপর্যায়ে বিমানবন্দরটি থেকে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার মতো টাকাও আয় করতে পারছিল না শ্রীলঙ্কা সরকার। প্রকল্পগুলো ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখা রাজাপক্ষ পরিবারের একক সিদ্ধান্তে হয়েছে। এই পরিবারটি দুই দশক ধরে শ্রীলঙ্কার রাজনীতিতে আধিপত্য বিস্তার করে আছে।

২০১৫ সালে প্রেসিডেন্টের পদ হারান মাহিন্দা রাজাপক্ষে। তখন তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। ২০১৯ সালে শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। ওই বছর রাষ্ট্রপতির নির্বাচনকালে মাহিন্দার ভাই গোতাবায়া রাজাপক্ষে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন। পাশাপাশি ভ্যাট অর্ধেক করার প্রতিশ্রুতি দেন। অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে এটা ছিল তাঁর মরিয়া প্রচেষ্টা। তাঁর ধারণা ছিল, জনগণ বেশি বেশি কেনাকাটা করলে অর্থনীতি চাঙা হবে। ২০১৯ সালের ১ ডিসেম্বর শ্রীলঙ্কায় ভ্যাট কমিয়ে দেওয়া হয়। এর কয়েক মাস পরই শুরু হয় করোনা। ফলে গোতাবায়ার পরিকল্পনা খুব বেশি কাজে লাগেনি।

শ্রীলঙ্কার রাজস্ব আয়ের একটি বড় খাত পর্যটন। কিন্তু করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বিস্তারের কারণে আন্তর্জাতিক পর্যটক আগমন শূন্যে নেমে আসে। বিদেশে কর্মরত শ্রীলঙ্কানদের কাছ থেকে রেমিট্যান্সের প্রবাহও কমে যায়। এ দুটি অর্থনৈতিক স্তম্ভের ওপরই শ্রীলঙ্কা সরকারের ঋণ পরিশোধের সক্ষমতা নির্ভরশীল ছিল।

আয়ের ওই উৎসগুলো বন্ধ হওয়ার পর রাজাপক্ষে প্রশাসন ঋণ পরিশোধে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ব্যবহার করতে শুরু করে। উদ্বেগজনক হারে রিজার্ভ খরচ করছিল সরকার। পরে বাধ্য হয়ে ২০২১ সালে কর্তৃপক্ষ অনেকগুলো পণ্যের আমদানি নিষিদ্ধ করে। আরেকটি বড় বিপর্যয় ছিল সরকারের কৃষিনীতি। নির্বাচনকালে গোতাবায়া প্রতিশ্রুতি দেন, শ্রীলঙ্কা হবে জৈব কৃষির দেশ। এটি বাস্তবায়নে ১০ বছরের পরিকল্পনা নেন তিনি। কিন্তু ক্ষমতায় এসে হঠাৎ করে সিনথেটিক সার ও কীটনাশক নিষিদ্ধ করেন। কৃষি নীতিতে এই রাতারাতি পরিবর্তন উৎপাদনে ভয়ানক প্রভাব ফেলে। চাল উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ দেশটি চাল সংকটে পড়ে। ধানের উৎপাদন ২০ থেকে ৩০ শতাংশ কমে যায়। এই ঘাটতি পূরণে সরকারকে ৪৫ কোটি ডলারের চাল আমদানি করতে হয়। চা উৎপাদনে বিখ্যাত শ্রীলঙ্কা। সেখানেও ধস নামে। শ্রীলঙ্কায় খাবারের দাম বেড়ে যাওয়ায় ২০২১ সালে এই কৃষিনীতি বাতিল করা হয়।

এক দিকে ঋণ পরিশোধ ও আমদানিতে অপরিকল্পিতভাবে রিজার্ভ খরচ, অন্যদিকে পর্যটন খাতের মতো আয়ের প্রধান উৎসগুলোতে করোনার ধাক্কা শ্রীলঙ্কার অর্থনীতিকে পঙ্গু করে দেয়। ২০১৯ সালে পর্যটন খাত থেকে শ্রীলঙ্কার আয় ছিল ৭ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার। ২০২১ সালে সেটি নেমে আসে ২ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলারে। আমদানি করার জন্য বৈদেশিক মুদ্রা পেতে ব্যবসায়ীদের হিমশিম খেতে হয়।

চাল, মসুর, চিনি এবং গুঁড়া দুধের মতো খাবারগুলো শ্রীলঙ্কার বাজার থেকে উধাও হতে শুরু করে। এরপর গ্যাস স্টেশনগুলোতেও পেট্রল এবং কেরোসিন ফুরিয়ে যেতে শুরু করে। বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রগুলো চাহিদা মেটাতে পর্যাপ্ত তেল কিনতে পারেনি। এতে শ্রীলঙ্কায় বিদ্যুৎ ঘাটতির কারণে নিয়মিত ব্ল্যাকআউটে দেখা দেয়। ফিলিং স্টেশনগুলোতেও গাড়ির দীর্ঘ সারি নিয়মিত দৃশ্যে পরিণত হয়।

গত এপ্রিল মাসে শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নতুন প্রধান নিয়োগ দেন। তিনি ৫১ বিলিয়ন ডলার বৈদেশিক ঋণ পরিশোধে শ্রীলঙ্কার অক্ষমতার কথা সরাসরি ঘোষণা করেন। কিন্তু এ পদক্ষেপ শ্রীলঙ্কার ক্ষয়িষ্ণু অর্থের ঘাটতি মেটাতে ব্যর্থ হয়। মে মাসের শুরুতে দেশটির ব্যবহারযোগ্য বৈদেশিক মুদ্রা ছিল মাত্র ৫০ কোটি ডলার।

ঋণ পেতে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। তীব্র গণ আন্দোলনের মুখে কদিন আগে শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপক্ষে পদত্যাগ করেছেন। ১২ মে শপথ নিয়েছেন নতুন প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমসিংহে।

শ্রীলঙ্কার পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের একশ্রেণির মানুষের মধ্যে উল্লাস লক্ষ করা যাচ্ছে। একটি দেশের ভুল নীতি ও অদূরদর্শী সিদ্ধান্তের কারণে বিপর্যয় দেখা দেওয়ায় আমাদের উল্লসিত হওয়ার কারণ বোধগম্য নয়। এটা বোধহয় পাগলের গোবধে আনন্দের মতো। সাধারণ মানুষ শুধু নয়, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের নেতারা জোর গলায় বলছেন, বাংলাদেশের অবস্থাও শ্রীলঙ্কার মতো হবে?

কোন তথ্য বা যুক্তিতে বলীয়ান হয়ে তারা এমন খেলো বক্তব্য দিচ্ছেন তা আমরা জানি না। একটি দেশের কোনো ঘটনা যে অন্য দেশে হবহু ঘটে না এটা বোঝার জন্য বিরাট পণ্ডিত হওয়ার দরকার হয় না। সাধারণ কাণ্ডজ্ঞান থাকলেই চলে। তবে আমাদের দেশের উল্লসিতদের যে কাণ্ডজ্ঞানের ঘাটতি আছে তা বললে বাড়িয়ে বলা হবে না। আলোচনা দীর্ঘ না করে সংক্ষিপ্ত কিছু পরিসংখ্যান উল্লেখ করে এটাই বলার যে, বাংলাদেশের পরিস্থিতি শ্রীলঙ্কার মতো হবে না।

কেন হবে না? কারণগুলো দেখা যাক-

শ্রীলঙ্কার অর্থনীতি মূলত পর্যটননির্ভর। শ্রীলঙ্কান সরকারের রাজস্ব আয়ের ধস নেমেছে করোনার দুই বছরে। পর্যটকদের ভ্রমণ বন্ধ থাকায় কার্যত এই খাত থেকে দেশটির আয় হয়নি। অথচ পর্যটক আকৃষ্ট করতে নানা প্রকল্পে আগে নেয়া বিপুল পরিমাণ বিদেশি ঋণের কিস্তি ঠিকই পরিশোধ করতে হয়েছে। শিল্প উৎপাদনে ধস নেমেছে, রপ্তানি আয় ও রেমিট্যান্সও পৌঁছেছে তলানিতে। পাশাপাশি কর ও ভ্যাট কমানো, কৃষিতে রাসায়নিকের ব্যবহার শূন্যতে নামিয়ে আনার কারণে উৎপাদনের ঘাটতি, সব মিলিয়ে কিছু ভুল পরিকল্পনা আর মহামারিতে এই দশা হয়েছে দেশটির।

অন্যদিকে, বাংলাদেশের অর্থনীতি কোনো একক খাতনির্ভর নয় । করোনাকালেও দেশের আর্থিক খাতগুলো সচল ছিল। খাদ্য উৎপাদন ঘাটতি নেই। বাংলাদেশের রপ্তানিআয় ও রেমিটেন্সের পরিমাণ আশঙ্কার জায়গায় পৌঁছেনি। বাংলাদেশের প্রধানখাদ্য আমদানি নির্ভর নয়। বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৪৪ দশমিক ৪০ বিলিয়ন ডলার। আর শ্রীলঙ্কার রিজার্ভ ২ বিলিয়ন ডলারেরও কম। বাংলাদেশের বিদেশি ঋণও শ্রীলঙ্কার মতো মাথাপিছু এত বেশি নয়। বাংলাদেশের মাথাপিছু ঋণের পরিমাণ ২৯২.১১ যা শ্রীলঙ্কার মাথাপিছু ১৬৫০ ডলার।

জুন মাসেই পদ্মা সেতু চালু হবে বলে জানানো হয়েছে। মেট্রোরেল, বঙ্গবন্ধু টানেলসহ আরও কয়েকটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলও চালু হবে এ বছরই। এসব প্রকল্প চালু হলে বাংলাদেশের উন্নয়নে নতুন মাত্রা যোগ হবে। বেড়ে যাবে মোট দেশজ উৎপাদন। অথচ গত ১৫ বছরে শ্রীলঙ্কায় সমুদ্রবন্দর, বিমানবন্দর, রাস্তা এবং আরও নানা প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে।

রাজধানী কলম্বোর কাছেই সমুদ্র থেকে ভূমি উদ্ধার করে কলম্বো পোর্ট সিটি নামে আরেকটি শহর তৈরি করা হচ্ছে। এর কাজ শেষ হতে সময় লাগবে ২৫ বছর এবং বাজেট ধরা হয়েছে প্রায় দেড় বিলিয়ন ডলার। এই শহরটি হংকং, দুবাই ও সিঙ্গাপুরকে টেক্কা দেবে- এমন কথা বলা হচ্ছে। এ ধরনের প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন উৎস থেকে শ্রীলঙ্কা ঋণ নিয়েছে, কিন্তু বিপুল অর্থ খরচ করা হলেও অনেক প্রকল্প অর্থনৈতিকভাবে লাভজনক হয়নি।

অন্যদিকে বাংলাদেশের নেওয়া মেগাপ্রকল্প পদ্মা সেতু, কর্ণফুলী টানেল, মেট্রো রেল, ঢাকার এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র, রামপাল কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র, মাতারবাড়ী কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র, পায়রা সমুদ্রবন্দর, গভীর সমুদ্রবন্দর, এলএনজি টার্মিনাল বাস্তবায়ন করছে, তার একটাও অপ্রয়োজনীয় নয়; সবই গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজন। এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে সঙ্গে সঙ্গে রিটার্ন আসবে। দেশে বিনিয়োগ বাড়বে। কর্মসংস্থান হবে। জিডিপি প্রবৃদ্ধি বাড়বে।

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে বাংলাদেশের ছোট-বড় সব প্রকল্পেই কিন্তু বিশ্বব্যাংক, এডিবি, আইডিবি, জাইকাসহ অন্য উন্নয়ন সংস্থার ঋণ এবং নিজের অর্থ যোগ করেছে। এসব সংস্থার সুদের হার খুবই কম। অনেক বছর ধরে শোধ করা যায়। কোনো কোনো ঋণ অবশ্য পরবর্তী সময়ে অনুদান হিসেবে অন্য প্রকল্পেও দেয়। বিশেষ করে জাইকার বেশির ভাগ ঋণের ক্ষেত্রে এমনটা হয়ে থাকে।

অন্যদিকে শ্রীলঙ্কা চীনের কাছ থেকে সাপ্লায়ার্স ক্রেডিট (যে দেশ টাকা দেবে, সে দেশ থেকে পণ্য কেনা) ঋণ নিয়ে বড় বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে। প্রয়োজন নেই, এমন অনেক প্রকল্পও তারা করেছে। এসব প্রকল্পের সুদের হার অনেক বেশি। সেসব ঋণ সুদে-আসলে পরিশোধ করতে গিয়েই এখন বিপদে পড়েছে শ্রীলঙ্কা।

গত জানুয়ারি মাসে মাত্র ২৭ কোটি ১০ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছে শ্রীলংকায়। বাংলাদেশ ব্যাংকের মার্চ মাসের তথ্য অনুযায়ী ১৮৬ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। গত ২০২০-২১ অর্থবছরে করোনা মহামারির মধ্যেও ২৪ দশমিক ৭৮ বিলিয়ন ডলারের রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থানকারী সোয়া কোটি বাংলাদেশি।

করোনা মহামারি ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যেও বাংলাদেশ রপ্তানি আয়ে চমক দেখিয়ে চলেছে। গত অর্থবছরে ১৭ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি হয়েছিল। চলতি অর্থবছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) প্রবৃদ্ধি হয়েছে তারও দ্বিগুণ ৩৩ দশমিক ৪১ শতাংশ। শ্রীলঙ্কায় রপ্তানি আয় তলানিতে নেমেছে। রেমিট্যান্সের অবস্থাও করুণ।

৪ এপ্রিল বাংলাদেশের রিজার্ভ ছিল ৪৪ দশমিক ৪০ বিলিয়ন ডলার। আর শ্রীলঙ্কার রিজার্ভ ২ বিলিয়ন ডলারেরও কম। গত জানুয়ারি মাস শেষে শ্রীলঙ্কার রিজার্ভ ছিল ২ দশমিক ৩৬ বিলিয়ন ডলার। অর্গানিক কৃষির নেতিবাচক প্রভাবে শ্রীলঙ্কায় সংকট বেড়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের কৃষিতে বড় কোনো নেতিবাচক খবর নেই।

বাংলাদেশে খাদ্য মজুতের পরিমাণ নিয়ে উদ্বেগ নেই। তবে এটা ঠিক শ্রীলঙ্কা থেকে আমাদের শেখার আছে, সতর্কতার প্রয়োজন আছে। আমাদের দেশ থেকে অন্য দেশে অর্থ পাচার বন্ধ করতে হবে। দুর্নীতি, অনিয়ম, অপচয় বন্ধে কঠোর হতে হবে। বিলাসিতা পরিহার করে সব ক্ষেত্রে কৃচ্ছ্র সাধনের পথে হাঁটলে ভালো হবে। রাজনীতিতে সহনশীলতার চর্চা বাড়াতে হবে। ভিন্ন মত প্রকাশের ব্যাপারেও উদারতা দেখাতে হবে। হতাশা নয়, আশায় উজ্জীবিত হতে হবে গোটা জাতিকে।

লেখকঃ জেষ্ঠ সাংবাদিক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত