চলচ্চিত্র খ্যাত ব্যক্তিত্ব -

ছাপ্পান্নতেই চলে গেলেন আহমেদ রুবেল, রেখে গেলেন কীর্তিমন্দির

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১:৫৯ |  আপডেট  : ৩ মার্চ ২০২৪, ১৪:৫৯

আর মাত্র দুদিন পর দেশের হলে হলে মুক্তি পাবে নুরুল আলম আতিকের নতুন সিনেমা 'পেয়ারার সুবাস'; কিন্তু সিনেমার প্রিমিয়ার শো এর দিনই চলে গেলেন এ সিনেমার অভিনেতা আহমেদ রুবেল। বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বসুন্ধরায় স্টার সিনেপ্লেক্সে, 'পেয়ারার সুবাস' এর প্রিমিয়ার শোয়ে অংশ নিতে যান রুবেল। কিন্তু অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছানোর আগেই হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। 

মঞ্চ, টেলিভিশন আর চলচ্চিত্রের আলোচিত এ অভিনেতা চিরবিদায় নিলেন ৫৬ বছর বয়সেই। তার মৃত্যুর খবর গ্লিটজকে নিশ্চিত করেছেন 'পেয়ারার সুবাস' সিনেমার প্রধান সহকারী পরিচালক শ্যামল শিশির। 

গাজীপুরের ছায়াবীথি থেকে হাতে সময় নিয়েই বের হয়েছিলেন আহমেদ রুবেল। বাবার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে বের হয়েছিলেন তিনি । সেই বিদায় যে চিরবিদায় হবে, তা কে জানত। সন্ধ্যায় ঢাকার বসুন্ধরা সিটির স্টার সিনেপ্লেক্সে তাঁর ‘পেয়ারার সুবাস’ সিনেমার প্রিমিয়ার শো ছিল। গাড়ি চালাচ্ছিলেন আহমেদ রুবেল। পথে উত্তরা থেকে ‘পেয়ারার সুবাস’–এর নির্মাতা নূরুল আলম আতিককে গাড়িতে তুলে নেন; সঙ্গে সহকারী পরিচালকও ছিলেন। বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা নামার আগে সোয়া পাঁচটার দিকে বসুন্ধরা সিটিতে পৌঁছান তিনি।  

শ্যামল শিশির বলেন, “আতিক ভাই আর রুবেল ভাই একসঙ্গেই আসছিলেন। বসুন্ধরা সিটির বেজমেন্টে গাড়ি রেখে প্রিমিয়ার অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা ছিল তাদের। কিন্তু গাড়ি থেকে নামার পর রুবেল ভাই হুট করে বেজমেন্টে ফ্লোরে পড়ে যান। তখন আতিক ভাই আমাকে ফোন করে জানান। আমি দুজন ছেলেকে পাঠাই সেখানে। এরপর রুবেল ভাইকে স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।"

মাসাদুল হক জানান, দেয়ালে লেগে তাঁর কপাল ফুলে যায়। ধরাধরি করে তাঁরা আহমেদ রুবেলকে পাশের চেয়ারে বসান। মাথায় পানি দেন।আমরা ভেবেছিলাম, উনি মাথা ঘুরে পড়ে গেছেন। তাই মাথায় পানি দিচ্ছিলাম। তখন তাঁর জ্ঞান ছিল। বারবার ঢেকুর তুলছিলেন'।

মাসাদুলের ভাষ্যে, তখনো রুবেলের জ্ঞান ছিল। প্রাথমিক চিকিৎসাকেন্দ্রে দায়িত্বরত চিকিৎসক রুবেলকে জরুরি ভিত্তিতে হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন।

হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ‘তাঁর পালস ছিল না। পরীক্ষা–নিরীক্ষা করে আমরা নিশ্চিত হই, ডেড অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছিল,’ বলেন সেই চিকিৎসক। বিকেল ৫টা ৫৮ মিনিটে তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। 

আহমেদ রুবেলের এমন আকস্মিক মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ হয়ে পড়েছেন তাঁর দীর্ঘদিনের সহকর্মীরা। তাঁকে শেষবারের মতো দেখতে হাসপাতালে ভিড় করেন সহকর্মীরা। নির্মাতা প্রসূন রহমান, মাতিয়া বানু শুকু, অভিনেত্রী জাকিয়া বারী মমসহ অনেকেই হাসপাতালে এসেছিলেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নাসির উদ্দিন ইউসুফ, শিমুল ইউসুফ, চঞ্চল চৌধুরী, নির্মাতা রেদওয়ান রনি, প্রযোজক শাহরিয়ার শাকিল, অভিনয়শিল্পী মেহজাবীন চৌধুরী, শাহেদ আলী, ভাবনা, সোহেল মন্ডল, নাজিফা তুষিসহ আরও অনেকে শোক জানিয়েছেন। 

আহমেদ রুবেলের মরদেহ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে রাখা হবে। আসরের পর গাজীপুর কবরস্থানে সমাহিত করা হবে তাঁকে।

১৯৬৮ সালের ৩ মে চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরে জন্ম নেওয়া আহমেদ রুবেল বেড়ে উঠেছেন ঢাকায়। অভিনয়ের সঙ্গে তার সখ্য মঞ্চ দিয়ে। সেলিম আল দীনের 'ঢাকা থিয়েটারে' যোগ দেওয়ার পর ‘হাতহদাই’ নাটকে প্রথম অভিনয় করেন রুবেল। তাকে প্রথম টিভি নাটকে পাওয়া যায় একুশে টেলিভিশনের পর্দায় গিয়াস উদ্দিন সেলিমের ‘স্বপ্নযাত্রা’য়। তারপর হুমায়ূন আহমেদের ঈদনাটক 'পোকা'য় অভিনয় করেন রুবেল, তৈরি হয় তার আলাদা ধরনের জনপ্রিয়তা।

হুমায়ূন আহমেদের ‘অতিথি', 'নীল তোয়ালে', 'বিশেষ ঘোষণা', 'সবাই গেছে বনে', ' বৃক্ষমানব', 'যমুনার জল দেখতে কালো' নাটকে রুবেলের অভিনয় প্রশংসিত হয়। মুহম্মদ জাফর ইকবালের লেখা ধারাবাহিক 'প্রেত' নাটকটি রুবেলকে দেয় অন্যরকম জনপ্রিয়তা।

এক পর্বের এবং ধারাবাহিক নাটকের মধ্যে  'বারোটা বাজার আগে', 'প্রতিদান', 'নবাব গুন্ডা',  'এফএনএফ', 'একান্নবর্তী', 'রঙের মানুষ, 'পাথর', 'অতল', 'চেয়ার', 'স্বর্ণকলস', 'আয়েশার ইতিকথা', 'দূরের বাড়ি কাছের মানুষ', সৈয়দ বাড়ির বউ' সহ আরও অনেক নাটকে অভিনয় করেছেন রুবেল।

চলচ্চিত্রে রুবেলের যাত্রা শুরু ১৯৯৪ সালে, বাণিজ্যিক ধারার 'আখেরি হামলা' সিনেমা দিয়ে। এ পর্যন্ত 'আজকের ফায়সালা', 'মুক্তির সংগ্রাম', 'রঙিন রংবাজ', 'কে অপরাধী', 'সাবাস বাঙালি', 'মেঘলা আকাশ', 'পৌষ মাসের পিরিত'সহ  ১৯টি সিনেমায় অভিনয় করেছেন রুবেল।

তবে চলচ্চিত্রে রুবেলকে জনপ্রিয়তা ও পুরস্কার এনে দিয়েছে হুমায়ূনের 'চন্দ্রকথা', 'শ্যামল ছায়া'। কলকাতার সিনেমাতেও রুবেল কাজ করেছেন। ২০১৪ সালে ভারতের নির্মাতা সঞ্জয় নাগ পরিচালিত 'পারাপার' এ প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি।  এছাড়া 'ব্যাচেলর', মুক্তিযুদ্ধের সিনেমা 'গেরিলা', 'দ্য লাস্ট ঠাকুর', 'অলাতচক্র', 'লাল মোরগের ঝুঁটি' ও রুবেলের মুক্তি পাওয়া সর্বশেষ সিনেমা 'চিরঞ্জীব মুজিব' তাকে একজন দারুণ অভিনেতা হিসেবে বারবার তুলে ধরেছে। এবং ৯  ফেব্রুয়ারি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে যাচ্ছে ‘সুবাস ছড়িয়ে’

শেষ কাজ 'পেয়ারার সুবাস' নিয়ে দারুণ আশাবাদী ছিলেন রুবেল। শুক্রবার মুক্তি পেতে চলা এই সিনেমাটির ট্রেইলার প্রকাশ হয়েছে মঙ্গলবার। সিনেমার শুটিং শুরু হয়েছিল ২০১৬ সালে। কাজ শুরুর পর দফায় দফায় বিরতি দিয়ে সেই শুটিং শেষ হয় কোভিড মহামারীর মধ্যে ২০২০ সালের শেষ দিকে। এরপর বাদবাকি কাজ সারতে লেগে যায় আরো তিন বছর। এ সিনেমায় মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া আহসান, আর আহমেদ রুবেলের চরিত্রও গুরুত্বপূর্ণ। গত বছর ৪৫তম মস্কো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে 'পেয়ারার সুবাস' এর প্রিমিয়ার হয়।

শ্যামল শিশির জানান, আহমেদ রুবেলের মরদেহ রাতে রাখা হবে হিমঘরে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় কফিন নেওয়া হবে শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে।

 

সা/ই

 

 

 

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত