ট্রাভিস হেড-ক্লাসেন ঝড়ে নিজেদের রেকর্ড ভাঙলো সানরাইজার্স হায়দরাবাদ  

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ১৩:৫৫ |  আপডেট  : ১৮ মে ২০২৪, ০৭:৩৪

নিজেদের গড়া রেকর্ড ভেঙে বেঙ্গালুরুর এম. চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে ফের আইপিএল ইতিহাসের সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে নির্ধারিত ২০ ওভারে ২৮৭ রানের পাহাড়সম স্কোর গড়েছে প্যাট কামিন্সের দল।

এর আগে, চলতি আসরেই হায়দরাবাদের দলটি আইপিএলের সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছিল। গত ২৭ মার্চ রাজীব গান্ধী স্টেডিয়ামে  মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে ৩ উইকেট হারিয়ে ২৭৭ রান করেছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।

এছাড়া ২০১৩ সালে গেইলের দানবীয় ব্যাটিংয়ে পুনে ওয়ারিয়র্সের বিপক্ষে ৫ উইকেট হারিয়ে ২৬৩ রান করে তৃতীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটি রয়েছে বেঙ্গালুরুর দখলে।

খেলার শুরুতে ঘরের মাঠে টস জিতে সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। শুরুতেই ঝড় শুরু করেন ট্রাভিস হেড ও অভিষেক শর্মা। বেঙ্গালুরু বোলারদের ওপর রীতিমত টর্নেডো বইয়ে দিতে শুরু করেন হায়দরাবাদের দুই ওপেনার । ৬ ওভার ৭৬, ৭ ওভারে তারা তুলে ফেলে ৯৭ রান। ৭.১ ওভারে পার করে ফেলে ১০০ রানের মাইফলক। ১১.২ ওভারে ছুঁয়ে ফেলে ১৫০ রান। ১৫ ওভারে পূরণ করে ২০০ রান। ওভারপ্রতি রান তুলছে ১৪.৩৫ করে।

২০ বলে হাফ সেঞ্চুরি, ৩৯ বলে সেঞ্চুরি ও ৪১ বলে ১০২ রান করে আউট হন ট্রাভিস হেড।  মাঝে ২২ বলে ৩৪ রান করা অভিষেক শর্মা ছক্কা মারতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে ধরা পড়েন রিস টপলির হাতে। ততক্ষণে ৮.১ ওভারে ১০৮ রানের জুটি গড়েছেন তারা।

দলীয় ১৬৫ রানের মাথায় ৪১ বলে ১০২ রান করে আউট হন ট্রাভিস হেড। লকি ফার্গুসনের একটি বলকে ছক্কা মারতে গিয়ে আকাশে তুলে দেন বল। ফ্যাফ ডু প্লেসি সেটি তালুবন্দী করেন। ৯টি বাউন্ডারির সঙ্গে ৮টি ছক্কা দিয়ে নিজের ইনিংস সাজান হেড।

হেনরিক ক্লাসেন ছিলেন আরও মারমুখি। যদিও তিনি ২৩ বলে হাফ সেঞ্চুরি পূরণ করেন। শেষে আউট হন ৩১ বলে ৬৭ রান করে। ২টি বাউন্ডারির সঙ্গে ৭টি ছক্কার মার মারেন তিনি। ১৭ বলে এইডেন মারক্রাম করেন ৩২ রান। ২টি করে বাউন্ডারি এবং ছক্কার মার মারেন তিনি।

আবদুল সামাদ ১০ বলে খেলেন ৩৭ রানের ইনিংস। ৪টি বাউন্ডারির সঙ্গে মারেন ৩টি ছক্কার মার। মূলত শেষ দিকে তার ঝোড়ো ব্যাটিংয়েই ২৭৭ রানের রেকর্ড পার হয়ে ২৮৭ রান করে হায়দরাবাদ।

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত