জেনারেল (অব.) আজিজের ওপর নিষেধাজ্ঞা, গণতন্ত্র ও মানবাধিকার গুরু আমেরিকার নীতি

  অভিজিৎ বড়ুয়া অভি

প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪, ১২:৪৯ |  আপডেট  : ২২ জুন ২০২৪, ১৩:১২

২০২৪ সালের এই জ্ঞান বিজ্ঞান স্যোশাল মিডিয়ার যুগে এসেও আমরা মার্কিনীদের গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের নামে মিথ্যাচার, নিলর্জ্জতা দেখছি। দুর্নীতির সঙ্গে ব্যাপক সম্পৃক্ততার অভিযোগে সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদ এবং তার পরিবারের সদস্যদের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির স্থানীয় সময় সোমবার দুপুরে [বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার ভোরে] মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর বাইডেন প্রশাসনের ওই সিদ্ধান্তটি প্রকাশ করে। বাংলাদেশ বিষয়ে তাদের গত নির্বাচনের আগে ও পরে মূল্যায়ন ছিলঃ “মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এখনও গণতন্ত্র নিয়ে গভীরভাবে চিন্তা করে—বাংলাদেশ এবং অন্যত্র। খুব সহজভাবে, আমরা বিশ্বাস করি গণতন্ত্র হল স্থায়ী অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনের সর্বোত্তম উপায় যা একটি দেশের সমস্ত জনগণের সেবা করে। আমরা সুশীল সমাজের সাহসী সদস্য এবং মানবাধিকার রক্ষাকারীদের সমর্থন অব্যাহত রাখব। আমরা মিডিয়া পেশাদারদের পদ্ধতিগত দমন ও হয়রানির অবসানের আহ্বান জানাতে থাকব যারা কেবল তাদের কাজ করছেন। আমরা বৃহত্তর বাক ও সমাবেশের স্বাধীনতার জন্য চাপ অব্যাহত রাখব। এবং আমরা আরও উন্মুক্ত, শান্তিপূর্ণ এবং গণতান্ত্রিক সমাজের পথ প্রশস্ত করার জন্য অর্থপূর্ণ রাজনৈতিক সংলাপের আহ্বান জানাতে থাকব।”-- মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বাংলাদেশে দুই বছরের কথা তুলে ধরেন।

ইউএস ডিপার্টমেন্ট অফ স্টেট ২০২৩ সালের মানবাধিকার রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। ২০২৩ হিউম্যান রাইটস রিপোর্ট (এইস.আর.আর) ১৯৮টি দেশ ও অঞ্চলকে নিয়ে করা। মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে এইচআরআর-এর রিপোর্ট হলো বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতির উল্লেখযোগ্য কোনো পরিবর্তন হয়নি। এইচআরআর-এর রিপোর্ট এর উল্লেখযোগ্য মানবাধিকার বিষয়গুলির মধ্যে রয়েছে: বিচারবহির্ভূত হত্যা সহ নির্বিচারে বা বেআইনি হত্যা; জোরপূর্বক অন্তর্ধান; সরকার কর্তৃক নির্যাতন বা নিষ্ঠুর, অমানবিক বা অবমাননাকর আচরণ বা শাস্তি; কঠোর এবং জীবন-হুমকি কারাগারের অবস্থা; নির্বিচারে গ্রেফতার বা আটক; বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিয়ে গুরুতর সমস্যা; রাজনৈতিক বন্দী; অন্য দেশে ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক দমন; গোপনীয়তার সাথে স্বেচ্ছাচারী বা বেআইনী হস্তক্ষেপ; কোনো আত্মীয়ের অভিযুক্ত অপরাধের জন্য পরিবারের সদস্যদের শাস্তি; সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে সহিংসতা বা সহিংসতার হুমকি, সাংবাদিকদের অযৌক্তিক গ্রেপ্তার বা বিচার, সেন্সরশিপ, এবং মতপ্রকাশ সীমিত করার জন্য ফৌজদারি মানহানি আইন বলবৎ করার বা হুমকি সহ মত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতার উপর গুরুতর সীমাবদ্ধতা; ইন্টারনেট স্বাধীনতার উপর গুরুতর নিষেধাজ্ঞা; শান্তিপূর্ণ সমাবেশের স্বাধীনতা এবং সংস্থার স্বাধীনতার সাথে উল্লেখযোগ্য হস্তক্ষেপ, যার মধ্যে সংগঠনের উপর অত্যধিক বিধিনিষেধমূলক আইন, তহবিল বা বেসরকারি ও সুশীল সমাজ সংস্থার পরিচালনা; চলাচলের স্বাধীনতার উপর বিধিনিষেধ; অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে শান্তিপূর্ণভাবে তাদের সরকার পরিবর্তন করতে নাগরিকদের অক্ষমতা; রাজনৈতিক অংশগ্রহণের উপর গুরুতর এবং অযৌক্তিক বিধিনিষেধ; গুরুতর সরকারি দুর্নীতি; গার্হস্থ্য এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলির উপর গুরুতর সরকারি বিধিনিষেধ বা হয়রানি; ব্যাপক লিঙ্গ-ভিত্তিক সহিংসতা, যার মধ্যে গার্হস্থ্য এবং অন্তরঙ্গ সঙ্গীর সহিংসতা, যৌন সহিংসতা, কর্মক্ষেত্রে সহিংসতা, শিশু, বাল্য, এবং জোরপূর্বক বিবাহ এবং এই ধরনের সহিংসতার অন্যান্য রূপ; জাতিগত সংখ্যালঘু গোষ্ঠী বা আদিবাসীদের লক্ষ্য করে সহিংসতা বা সহিংসতার হুমকি জড়িত অপরাধ; প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে সম্মতিপূর্ণ সমলিঙ্গের যৌন আচরণকে অপরাধী করা আইন; সহিংসতা জড়িত অপরাধ বা সহিংসতার হুমকি লেসবিয়ান, সমকামী, উভকামী, ট্রান্সজেন্ডার, কুয়ার, বা ইন্টারসেক্স ব্যক্তিদের লক্ষ্য করে; স্বাধীন ট্রেড ইউনিয়ন এবং শ্রমিকদের সংগঠনের স্বাধীনতার উপর উল্লেখযোগ্য বিধিনিষেধ; এবং শিশুশ্রমের সবচেয়ে খারাপ রূপের অস্তিত্ব। মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য ব্যাপক দায়মুক্তির। বলা হয়েছে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, সরকার মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী কর্মকর্তা বা নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের চিহ্নিত করতে এবং শাস্তি দেওয়ার জন্য বিশ্বাসযোগ্য পদক্ষেপ নেয়নি।

এবার আমরা ইসরাইল বিষয়ে মার্কিনদের দ্বৈতনীতির প্রতিফলন একটু পর্যালোচনা করিঃ সোমবার হোয়াইট হাউসের বেনি গ্যান্টজের সাথে বৈঠক করেন ইসরায়েলের যুদ্ধ মন্ত্রিসভার একজন কেন্দ্রবাদী সদস্য। বৈঠকের বিষয়ে হোয়াইট হাউসের থেকে বলা হয়েছে যে হ্যারিস ইসরায়েলের প্রতি মার্কিন সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেছে। মার্কিনরা ইসরায়েলকে অস্ত্র সরবরাহ করেছে এবং করবে। ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে হামাসের হামলার পর থেকে আনুমানিক ২৪০০০ ফিলিস্তিনি, যাদের বেশিরভাগই নারী ও শিশু, ইসরায়েলি বাহিনীর হাতে নিহত হয়েছে। কিন্তু মার্কিনদের গণতন্ত্র ও মানবাধিকার এখানে গাজায় ইসরায়েলের "নির্বিচার" বোমা হামলার লাগাম টেনে ধরতে ব্যর্থ । তার উপর গত কয়েক বছরে মার্কিন মানবাধিকার আইন থেকে ইসরায়েলকে রক্ষা করার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা ব্যবহার করা হয়েছে। স্টেট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তারা কার্যত ইসরায়েলের ক্ষেত্রে মার্কিন আইনকে এড়িয়ে যেতে সক্ষম হয়েছেন। বিশেষভাবে উদ্বেগজনক হলো ইস্রায়েলের ক্ষেত্রে লেহি (Leahy) আইন প্রয়োগ না করা। গার্ডিয়ানকে দেওয়া এক বিবৃতিতে, প্রাক্তন ভার্মন্ট সিনেটর বলেছেন যে, “লেহি আইনের উদ্দেশ্য ছিল মার্কিন সহায়তা প্রাপ্ত বিদেশী নিরাপত্তা বাহিনী দ্বারা মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘনের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে দোষী থেকে রক্ষা করা এবং ভবিষ্যতে লঙ্ঘন প্রতিরোধ করা।” ইসরাইলের ক্ষেত্রে“কিন্তু আইনটি ধারাবাহিকভাবে প্রয়োগ করা হয়নি, এবং আমরা পশ্চিম তীর এবং গাজায় যা দেখেছি তা তার একটি উজ্জ্বল উদাহরণ। বহু বছর ধরে আমি ধারাবাহিক মার্কিন প্রশাসনকে সেখানে আইন প্রয়োগ করার জন্য অনুরোধ করেছি, কিন্তু তা হয়নি,”। অন্তত তিনটি দেশের ক্ষেত্রে - ইসরায়েল, ইউক্রেন এবং মিশর - যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তার মাত্রা এত বেশি যে মার্কিন সামরিক সহায়তা হিসাব মেলানো কঠিন।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রকের মতে, গাজায় সামরিক অভিযান অব্যাহত থাকায় এবং নিহত ফিলিস্তিনিদের সংখ্যা ২৪০০০ ছাড়িয়ে গেছে, যাদের বেশিরভাগই বেসামরিক নাগরিক। বোমাবর্ষণে আটকে পড়া বেসামরিক নাগরিকদের সাহায্য পাওয়ার জন্য ইসরায়েল রাস্তা অবরোধ আরোপ করেছে।  মানবাধিকার সংস্থাগুলি ইসরায়েল দ্বারা বিচারবহির্ভূত হত্যা, নির্যাতন এবং অন্যান্য শারীরিক নির্যাতনের রিপোর্ট করেছে, যাদের বেশিরভাগই ইসরায়েল-অধিকৃত পশ্চিম তীরে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে সংঘটিত হয়েছে। তাদের রিপোর্ট অনুসারে গাজায় ৫৫০০ শিশু সহ ১৩০০০ ফিলিস্তিনিদের ইসরায়েলের হত্যা এবং দক্ষিণ ইস্রায়েলে হামাসের অনুপ্রবেশের পরে ৩৩০০০ জনের আহত হওয়ার ঘটনা, যার ফলস্বরূপ ১২০০ ইসরায়েলি মারা গেছে। গাজার বিরুদ্ধে চলমান যুদ্ধের মধ্যে ইসরায়েলের প্রতি বিডেন প্রশাসনের সমর্থন নিন্দার যোগ্য।

সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে, হাজার হাজার মার্কিন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী গাজা যুদ্ধের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করছে। অনেক প্রতিবাদ অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং অব্যাহত রয়েছে। তবে বেশ কয়েকটি জায়গায়, বিক্ষোভকে ছত্রভঙ্গ করে দিয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী। গ্রেফতার করা হয়েছে শতাধিক শিক্ষার্থীকে। অনেককে পরবর্তীকালে মুক্তি দেওয়া হয়েছে, যখন অন্যরা এখনও অভিযোগ বা একাডেমিক নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এবং আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তাদের দ্বারা এই ধরনের পদক্ষেপ মার্কিন নির্লজ্জ মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রমাণ। এতে প্রমাণ করে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা এবং শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অধিকার মার্কিনীদের নেই।

লেখকঃ কথা সাহিত্যিক, কবি, গবেষক ও প্রাবন্ধিক। 

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত