কানাডার দাবানলের ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়েছে প্রতিবেশী যুক্তরাষ্ট্রেও, সতর্কতা জারি

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ৮ জুন ২০২৩, ১১:২৪ |  আপডেট  : ১৭ জুন ২০২৪, ২২:৩০

কানাডার দাবানলের ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়েছে প্রতিবেশী যুক্তরাষ্ট্রেও। নিউইয়র্কসহ দেশটির পূর্ব উপকূল রেকর্ড পরিমাণ ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় গতকাল বুধবার বায়ুদূষণ নিয়ে সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

এদিকে এরই মধ্যে দাবানলের কারণে হাজার হাজার কানাডীয় নাগরিক বাড়িঘর ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে বাধ্য হয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পরিবেশ সুরক্ষা সংস্থা (ইপিএ) জানিয়েছে, দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলসহ পশ্চিমের শিকাগো ও দক্ষিণের আটলান্টা পর্যন্ত ১০ কোটির বেশি মানুষ বায়ুদূষণ নিয়ে জারি করার সতর্কতার আওতায় পড়েছে।  

দাবানলে পুড়ছে গ্রাম। আগুন পৌঁছে গেছে রাজধানী এথেন্সের উপকণ্ঠেও। শুক্রবার গ্রিসের এভিয়া দ্বীপের ক্রিনথোসে

বুধবার নিউইয়র্কে রেকর্ড পরিমাণ ঘন হলুদাভ ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়ে। এ অবস্থায় মেয়র এরিক অ্যাডামস নগরবাসীকে ঘর থেকে বের না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ধোঁয়ার কারণে বিমান ওঠা–নামায় দেরি হয়। আগে থেকে নির্ধারণ করা বিভিন্ন খেলার ম্যাচ স্থগিত করা হয়।

গত শতকের ৬০–এর দশকের পর নগরবাসী সবচেয়ে দূষিত বায়ুর মুখে পড়েছে বলে উল্লেখ করেছেন নিউইয়র্কের জনস্বাস্থ্যবিষয়ক কমিশনার আসউইন ভাসান। আর নিউইয়র্কের গভর্নর ক্যাথি হোচুল বিদ্যমান পরিস্থিতিকে ‘জরুরি অবস্থা’ অভিহিত করেছেন।

থাইল্যান্ড থেকে নিউইয়র্কে বেড়াতে এসেছেন নিচা সুয়াইতিয়ানন। ধোঁয়ার কারণে চোখ জ্বালা করছে এবং চোখে পানি আসছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ধোঁয়ার গন্ধে মনে হচ্ছে, আশপাশে কেউ বারবিকিউয়ের আয়োজন করেছে।

‘দূষণের কারণে সারা দিনই একধরনের কাশি হচ্ছে’ বলে জানান নিউইয়র্কের অবসরপ্রাপ্ত আইনজীবী জ্যাক রাইট।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, তাপমাত্রার ঊর্ধ্বগতি গরম, শুষ্ক আবহাওয়া ও দাবানলের ঝুঁকি বাড়াচ্ছে।

কানাডায় ভয়াবহ এ দাবানলের কারণে ২০ হাজারের বেশি মানুষ বাড়িঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। প্রায় ৩৮ লাখ একর জমি দাবানলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো জানিয়েছেন, কানাডা এর আগে এত ভয়াবহ দাবানলের কবলে পড়েনি।

এর মধ্যে কুইবেক প্রদেশের বাসিন্দা রয়েছেন ১১ হাজার। স্থানীয় সূত্র জানায়, বুধবারের মধ্যে আরও চার হাজার মানুষের বাড়িঘর ছাড়ার কথা।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এক টুইটে জানিয়েছেন, কানাডায় দাবানল নিয়ন্ত্রণে তাঁর দেশের ফায়ার সার্ভিসের ছয় শতাধিক কর্মী এবং সংশ্লিষ্ট কর্মী নিয়োগ করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত