মাদারীপুরে ধর্ষণের ভিডিও ফাঁস করায় গৃহবধুর আত্মহত্যা

  শফিক স্বপন, মাদারীপুর

প্রকাশ: ২০ ডিসেম্বর ২০২৩, ১১:৫১ |  আপডেট  : ২১ মে ২০২৪, ১৬:৪৩

ফাইল ছবি

মাদারীপুরে ধর্ষণের ভিডিও ফাঁস করায় গৃহবধুর আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে।  

জানা যায়, মাদারীপুরে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে চাঁদা দাবি করে ধর্ষক। চাঁদা না দেয়ায় গৃহবধূকে ভিডিও ফাঁস করার হুমকি দেয় তারা । পরে বাধ্য হয়ে আদালতে মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ধর্ষণের ভিডিও ফাঁস করে দেয় অভিযুক্ত শামীম খান। পরে লোকলজ্জার ভয়ে মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) বিকেলে আত্মহত্যার পথ বেঁছে নেয় গৃহবধূ হামিদা আক্তার। 

নিহতের স্বজনরা জানান, গত ৫ মাস আগে শরীয়তপুর জেলার খাসচর এলাকার সৌদি প্রবাসী শামীম খানের সঙ্গে প্রেমের সর্ম্পকে জড়িয়ে পড়েন মাদারীপুর সদর উপজেলার খোয়াজপুর ইউনিয়নের মধ্যচক এলাকার হামিদ ঢালীর মেয়ে হামিদা আক্তার। এক পর্যায়ে প্রেমের ছলে শারিরীক সম্পর্ক করে মোবাইল ফোনে সেটা ধারণ করেন শামীম। পরে সেই ভিডিও তার স্বামীর কাছে দেয়ার ভয়-ভীতি দেখিয়ে মাঝে মাঝে শ্লীলতাহানি করেন। এক পর্যায়ে হামিদার কাছে চাঁদা দাবি করেন শামীম। এই ঘটনায় হামিদা আক্তার গত ১৮ ডিসেম্বর মাদারীপুর আদালতে শামীমকে আসামি করে মামলা দায়েন করেন। কিন্তু সেই মামলার কপি থানায় আসার দিনই হামিদা আক্তার তার বাবার বাড়ির একটি অটোচার্জ দেয়ার কারখানায় গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। মঙ্গলবার রাতে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। 

নিহত হামিদা আক্তারের স্বামী সৌদি প্রবাসী। তার একটি ৫ বছর বয়সী ছেলে রয়েছে। এই ঘটনায় দোষীর বিচার দাবি করেন তার স্বজনরা। নিহতের ভাই বলেন, 'আমার বোনের সঙ্গে যে অন্যায় করা হয়েছে, তার মতো যেন আর কোন মেয়ের সঙ্গে এমন অন্যায় করা না হয়। আমরা দোষীর কঠোর বিচার দাবি করি। সেই সাথে দোষীর ফাঁসি চাই।'

এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি এএইচএম সালাউদ্দিন বলেন, 'নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের দায়ের করা একটি মামলার তদন্তের জন্যে কপি আদালত থেকে এসেছে। বিষয়টি আমলে নিয়ে দোষীদের গ্রেপ্তারে জোর চেষ্টা করা হবে। এছাড়াও কেউ মামলা দিতে চাইলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।'

 

সান

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত