পাকিস্তানের নির্বাচন, দমন নিপীড়ন আর সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে জনগণের রায়

  অভিজিৎ বড়ুয়া অভি

প্রকাশ: ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৮:৪৯ |  আপডেট  : ৩ মার্চ ২০২৪, ১৮:২৬

পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে তৈরি জেল থেকে ইমরান খানের একটি অডিও-ভিজ্যুয়াল বার্তা প্রকাশ করেছে এবং সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে শেয়ার করেছে। খান, শরীফের বিজয়ের দাবি প্রত্যাখ্যান করেছেন, নির্বাচনে "জয়" করার জন্য তার সমর্থকদের অভিনন্দন জানিয়েছেন এবং তাদের ভোট রক্ষা করার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি দাবী করেছেন, ফর্ম ৪৫ অনুসারে তিনি নির্বাচনী চুড়ান্ত ভোট প্রকাশের আগে বেসরকারীভাবে ইসলামাবাদে ৩টি, বেলুচিস্তান ৪টি, পাঞ্জাবে ১০৯টি, সিন্ধু ২১টি, কেপিকে ৪২টি, সর্বমোট ১৭৯টি আসনে জনগণের রায়ে জয়ী হয়েছেন। পাকিস্তানের জনগণ খুশী যে তারা নিজেদের ভোট দিতে পেরেছেন। ১৯৭১ সালের পর ৫০% ভোটার ভোট দিলে তা গ্রহণ যোগ্য হিসেবে ধরা হয়। সেখানে ১৩ কোটি ভোটারের মধ্যে ৬০% ভোটার ভোট দিয়েছে বলে ধরে নেয়া হচ্ছে। এর একমাত্র কারণ ইমনার খানের পিটিআই স্বতন্ত্রপ্রার্থী হিসাবে ভোটে অংশগ্রহণ। খান পাকিস্থানের জনগণকে ভোট কেন্দ্রে আসতে, ভোট দিতে এবং তাদের রায়কে পাহারা দিতে বলেছিলেন। খান বলেছেন, "আমি বিশ্বাস করেছিলাম যে আপনারা সবাই ভোট দিতে আসবেন - এবং আপনারা আমার সেই আস্থাকে সম্মান করেছেন এবং আপনাদের ব্যাপক ভোটাভুটি সবাইকে হতবাক করেছে,"। তিনি আরো বলেছেন, “শরীফের দাবি কেউ মেনে নেবে না কারণ তিনি কম আসন জিতেছেন এবং কারচুপি হয়েছে।” আনোয়ারুল হক কাকার নেতৃত্বাধীন তত্বাবধায়ক সরকার প্রমাণ করেছে তত্বাবধায়ক সরকার হলেই নির্বাচন সুষ্ঠ হয় না। আর ইমরান খান প্রমাণ করেছে, যারা সরকারের দমন নিপীড়নের অজুহাতে নির্বাচন বর্জন করে তারা দূর্বল রাজনৈতিক দল। কারণ জনগণের সমর্থন থাকলে, কোন রাজনৈতিক দলকে তত্বাবধায়ক সরকার, সরকার বা শক্তিশালী সেনাবাহিনীও দমিয়ে রাখতে পারে না। তত্বাবধায়ক সরকার, সরকারে সকল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠান এবং শক্তিশালী সেনাবাহিনীর সকল দমন নিপীড়নের পরেও ইমরান খানের পিটিআইকে দমিয়ে রাখা যায় নি। বরং তার সমর্থন আরো বৃদ্ধি ঘটেছে। তার নারী কর্মীদের জেলে পর্যন্ত নির্মম  অত্যাচার করেছে সরকার।

পাকিস্তানের নির্বাচনের বর্তমান ফলাফল রাজনৈতিক সঙ্কটকে আরও গভীর করবে। যার প্রভাব পড়বে বেসামরিক-সামরিক সম্পর্ক, গণতন্ত্রের ভবিষ্যত, অভ্যন্তরীণভাবে ভয়াবহ অর্থনৈতিক পরিস্থিতি, ওয়াশিংটন, নয়াদিল্লি এবং বাকি বিশ্বের সাথে ইসলামাবাদের সম্পর্কে। এখন প্রশ্ন হলো: জেনারেল আসিম মুনিরের নেতৃত্বে সেনাবাহিনী, ইমরান খানের এই বিজয়কে বাইরে রেখে সরকার গঠনের একটি রাজনৈতিক কৌশলে কি সফল হবেন? নিশ্চিতভাবে বলা যায়, সেনাবাহিনী কোন শর্তে সরকার গঠন করার রাজনৈতিক কৌশল অবলম্বন করবে, সরকার গঠনে কতটা এগিয়ে যাবে এবং ক্ষমতা কাঠামোর বাইরে খানের জনপ্রিয় রাজনৈতিক শক্তিকে বাদ দিয়ে এগিয়ে যাবে তার অনেক ঝুঁকি সামাল দিতে হবে।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর দীর্ঘ ঐতিহ্যে হলো প্রত্যক্ষভাবে দেশ পরিচালনা করা, প্রধান নিরাপত্তা ও অভ্যন্তরীণ নীতির নিয়ন্ত্রণ বজায় রেখে সুবিধাজনক বেসামরিক নেতৃত্বে পরোক্ষভাবে ক্ষমতা প্রয়োগ করা।

খানের জয় হলো, তিনি নিজস্ব রাজনৈতিক ভিত্তি গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছেন। জনগণকে রাজনৈতিক স্বায়ত্তশাসনের স্বপ্ন দেখতে সফল হয়েছেন। তিনি সেনাবাহিনী এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে সমালোচনা করেছিলেন। এই নির্বাচনে সামরিক নেতৃত্ব খানকে ক্ষমতাচ্যুত করতে, নওয়াজ শরিফের পাকিস্তান মুসলিম লীগ এবং আসিফ আলি জারদারি-বিলাওয়াল ভুট্টোর পাকিস্তান পিপলস পার্টির রাজনৈতিক জোট গঠনের জন্য পদক্ষেপ নেয়। অপরদিকে খান তার সমর্থকদের একত্রিত এবং একটি রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বিতা তৈরী করতে থাকেন। কিন্তু খানের ও তার সমর্থকদের প্রতিবাদের ফলে যে সহিংসতার জন্ম দিয়েছিল তা সেনাবাহিনীকে বিচার বিভাগের মাধ্যমে দমন, গ্রেফতার ও ইমরানকে একাধিক মামলায় জড়ানো, পিটিআইকে তার প্রার্থীদের স্বতন্ত্রভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য ব্যালট থেকে বাদ দেওয়া, শরীফকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য যথেষ্ট সুযোগ করে দিয়েছিল।

বর্তমান নির্বাচনে ইমরান খানের পিটিআই সমস্ত বিধিনিষেধ এবং দমন-পীড়নের মধ্যে ভাল করেছে। কিন্তু এককভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে জয়ী হয়নি। সামরিক নেতৃত্ব ধীর গণনা প্রক্রিয়ার মধ্যেও শনিবারের গণনায় পিটিআই এর প্রার্থীরা স্বতন্ত্রভাবে কমপক্ষে ৯৮টি আসন পায়।  নওয়াজ শরিফের পিএমএল ৬৯টিতে জিতেছে, যা সেনাবাহিনীর সমর্থন ছিল, তারা তুলনামূলকভাবে খারাপ করেছে। তবে পিপিপি ভালো করেছে। পাকিস্তান পিপলস পার্টি ৫১টি আসন জয় করেছে। ২৬৬ সিটের ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির চূড়ান্ত ২০ বা তার বেশি আসন এখনও ঘোষণা করা বাকি।

আনোয়ারুল হক কাকার নেতৃত্বাধীন তত্বাবধায়ক সরকার প্রথম দিন থেকেই যেভাবে এগিয়েছে, তাতে প্রমাণ হয়ে গেছে যে তারা নির্বাচনের ফলাফলে কারচুপি করছে। এটিকে কারচুপির নির্বাচন না বলে ফিক্সড নির্বাচন বা পূর্ব নির্ধারিত নির্বাচন বলা যায়। পিটিআইকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে, ইমরান খান ও তার দলের প্রধান নেতাদের জেলে রাখা হয়েছে, তাদের দলীয় প্রতীক ক্রিকেট বেট নিষিদ্ধ করা হয়েছে, কোথাও নির্বাচনী সমাবেশ, অফিস বা ক্যাম্প খুলতে দেয়নি আনোয়ারুল হক কাকার নেতৃত্বাধীন তত্বাবধায়ক সরকার। ভোটের আগের দিন সোশ্যাল মিডিয়ার উপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করে সরকার, কারণ পিটিআইকে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার প্রচারণা চালাতে না দেয়া। তার মধ্যেও পিটিআই ইতিমধ্যেই জনসাধারণের রায়ে জয়ী হয়েছে এবং অনেকগুলি আসনে যে পিটিআই এর জয়কে সেনাবাহিনী ছিনতাই করেছে, তা প্রমাণ হয়ে গেছে। এরফলে পিটিআই রাস্তায় নামতে পারে, হিংসাত্মক বিক্ষোভ হতে পারে, যেমন আরব বসন্তের পরে মিশরে হয়েছিল৷ ঐকমত্য ও সমঝোতাই এগিয়ে যাওয়ার পথ কিন্তু দলগুলো, বিশেষ করে ইমরান খান মেনে নিতে পারেনি। কারণ ফলাফল ঘোষণা দীর্ঘ বিলম্ব মানুষের মধ্যে এই ধারণা সুস্পষ্ট করেছে যে, সামরিক সংস্থাগুলো ভোট কারচুপিতে জড়িত এবং সামরিক সংস্থাগুলোর সমর্থিত পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) সর্বাধিক সংখ্যক আসন নিয়ে দল হিসাবে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। ইমরান খান ঘোষণা করেছে যে, তিনি জনগণের রায়ে ১৭০টি আসনে জয়ী হয়েছেন।

খানের অনুগত পিটিআই এর স্বতন্ত্রভাবে জয়ী বেশিরভাগ আসন খাইবার পাখতুনখোয়ায়, যেখানে পুলিশ বলেছে যে শুক্রবার অন্তত দুজন পিটিআই সমর্থক নিহত হয়েছে এবং ২০ জনেরও বেশি আহত হয়েছে যখন তারা শাংলা জেলায় বিক্ষোভ করেছে। নির্বাচনের পর প্রথম গুরুতর সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে। খাইবার পাখতুনখোয়ার রাজধানী পেশোয়ার এবং বেলুচিস্তান প্রদেশের কোয়েটায় কথিত কারচুপির ফলাফলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ হয়েছে। ফলাফল পরিবর্তন করা হয়েছে দাবি করে, পেশোয়ারে প্রায় ২০০০ পিটিআই সমর্থক মিছিলে যোগ দিয়েছিল৷

দেশব্যাপী নির্বাচনের দিন মোবাইল টেলিফোন ব্ল্যাকআউট এবং ধীরগতির ফলাফল গণনা জনগণের মধ্যে সন্দেহের জন্ম দেয় যে সামরিক নেতৃত্বাধীন সংস্থা শরীফের সাফল্য নিশ্চিত করার প্রক্রিয়াটিকে নিশ্চিত করছে। পিটিআই, বেসামরিক এবং সামরিক সংস্থাগুলির উল্লেখযোগ্য প্রচেষ্টা সত্ত্বেও, তার ভোট ব্যাংক ধরে রাখতে সফল হয়েছে। পিপিপি, যার জনপ্রিয়তা মূলত তার সিন্ধুর কেন্দ্রস্থলে সীমাবদ্ধ, তারাও প্রত্যাশার চেয়ে ভাল করেছে, নেতা বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি বলেছেন প্রাথমিক ফলাফল "খুবই উত্সাহজনক"। ভোট নিয়ে উদ্বিগ্ন যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র। ব্রিটেন বলেছে যে তারা ভোট প্রক্রিয়া নিয়ে "গুরুতর উদ্বেগ" প্রকাশ করছে। অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বলেছে "হস্তক্ষেপ বা জালিয়াতির দাবি সম্পূর্ণরূপে তদন্ত করা উচিত"। নির্বাচনের দিনও সহিংসতার হয়েছিল, বেশিরভাগ আফগানিস্তানের সীমান্ত অঞ্চলে। দেশব্যাপী ৬১টি হামলার হয়েছে বলে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শুক্রবার জানিয়েছে। তাতে কমপক্ষে ১৬ জন নিহত হয়েছে, তাদের মধ্যে ১০ জন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য এবং ৫৪ জন আহত হয়েছে।

পাকিস্তানের শক্তিশালী সেনাবাহিনী, দক্ষিণ এশিয়ার দেশটির চূড়ান্ত কিংমেকার। তাদের ইমরান খান এবং পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফ (পিটিআই) পার্টিকে ৮ ফেব্রুয়ারির সাধারণ নির্বাচনে জয়ী হওয়া থেকে রোধ করার জন্য সমস্ত ব্যবস্থা নিতে দেখা গেছে। আগস্ট থেকে ইমরান খান কারাবন্দী, তাকে ভোটের কয়েক দিন আগে তিনটি পৃথক বিচারে রাষ্ট্রদ্রোহ, দুর্নীতি এবং একটি অনৈসলামিক বিয়ে করার জন্য দোষী সাব্যস্ত হন এবং ৩৪ বছরের জেল দেয়া হয় । ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর থেকে তার বিরুদ্ধে আনা হয় প্রায় ২০০টি মামলা। । পিটিআইকে সমাবেশ করতে বাধা দেওয়া এবং এর প্রার্থীদের স্বতন্ত্র হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে বাধ্য করা হয়েছিল । কিন্তু পাকিস্তানের ৭৬ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় নির্বাচনী বিপর্যয়ের মধ্যে, খান সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা দেশের জাতীয় পরিষদে সর্বাধিক আসনে জয়ী হয়েছে। ফলাফলটিকে দেশের সেনাবাহিনীকে জনগণের দ্বারা প্রত্যাখ্যান হিসাবে দেখা হচ্ছে। খান ২০২২ সালে ক্ষমতা থেকে ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর জেনারেলদের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালান। কারাগার থেকে এক বার্তায় খান জয় দাবি করেন। নির্বাচনে বাধা দেওয়া সত্ত্বেও, পিটিআই দাবি করেছে যে তাদের সরকার গঠনের অধিকার রয়েছে। নির্বাচনের ফলাফলের পর সেনাবাহিনীর পিছু হটার সম্ভাবনা নেই। অনেকেই আশা করে যে দেশের সবচেয়ে শক্তিশালী সেনাবাহিনী একটি জোট সরকার গঠনে রাজনৈতিক দলগুলোর জকি হিসেবে পর্দার আড়ালে একটি বড় ভূমিকা পালন করবে। ব্রিটেন থেকে স্বাধীনতার ৭৬ বছরে সামরিক বাহিনী পারমাণবিক অস্ত্রধারী দেশটিতে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে আধিপত্য বিস্তার করছে । পিএমএল-এন পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) সাথে জোটগত আলোচনা শুরু করেছে। আর এই সুযোগে পিপিপি প্রধানমন্ত্রীর পদ দাবী করেছে।

লেখকঃ কথা সাহিত্যিক, কবি, গবেষক ও প্রাবন্ধিক

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত