নিখোঁজের ২০ ঘণ্টা পর নদী থেকে মাদ্রাসা ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১:০৯ |  আপডেট  : ১২ জুন ২০২৪, ১৫:২৬

গাজীপুরের কালীগঞ্জে নিখোঁজের ২০ ঘণ্টা পর পারুলী নদী থেকে মাদ্রাসাছাত্র তাওহীদ শিকদারের (১৪) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে উপজেলার বক্তারপুর ইউনিয়নের ভাটিরা গ্রামের সৌদিপ্রবাসী কাউসার শিকদারের ছেলে। বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১২টার দিকে জাঙ্গালিয়া ইউনিয়নের নরুন এলাকার পারুলী নদী থেকে ওই ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

জাঙ্গালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) সোহেল রানা জানান, মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বিকালের পর থেকে তাওহীদকে মাদ্রাসা ও আশপাশের এলাকায় খুঁজে পাওয়া যায়নি। বিষয়টি মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ ওই ছাত্রের পরিবারকে জানায়। এরপর থেকে পরিবারের সদস্যরা তাওহীদকে সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজাখুজি করে কোনও সন্ধান পাননি। বুধবার সকালে স্থানীয়রা মাদ্রাসা থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার দূরে পারুলী নদীতে একটি মরদেহ ভাসতে দেখে। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে নিখোঁজ তাওহীদের স্বজনরা ঘটনাস্থলে গিয়ে তার মরদেহ শনাক্ত করেন।

খবর পেয়ে পুলিশ বেলা ১২টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার করে। নিহত তাওহীদ নরুন হিজবুল্লাহ হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানার হিফজ বিভাগের শিক্ষার্থী ছিল।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মাদ্রাসার দায়িত্বশীল একজন জানান, মঙ্গলবার দুপুরে মাদ্রাসাসংলগ্ন ফাইজুল্লার দোকান থেকে না বলে একটি কেক নেয় তাওহীদ। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ফায়জুল্লাহ তাওহীদকে আটক করে মাদ্রাসায় খবর দেয়। মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ ওই ছাত্রকে ফাইজুল্লার কাছ থেকে নিয়ে আসার সময় সে ভয়ে কান্না করছিল। মাদ্রাসায় নিয়ে আসার পর বিকাল থেকে সে নিখোঁজ হয়।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাতাব উদ্দিন বলেন, ‘পারুলী নদী থেকে মাদ্রাসাছাত্রের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সুরতহাল প্রতিবেদনে নিহতের শরীরের কোথাও কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ময়নাতদন্তের জন্য নিহতের লাশ গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর মৃত্যুর সঠিক কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে।’

কা/আ

 

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত