জিপিএ-৫ পেল পঞ্চগড়ে মিশনে বেড়ে ওঠা সুমন

  মোঃ কামরুল ইসলাম কামু

প্রকাশ: ১৪ মে ২০২৪, ১৭:৪১ |  আপডেট  : ২০ মে ২০২৪, ০৩:৫৪

সেই ছোটবেলায় বাবাকে হারিয়েছে থাকা হয়নি মায়ের কাছে ও। তার নাম সুমন রানা(১৭)। পঞ্চগড় সদর উপজেলার হাফিজাবাদ ইউনিয়নের আহছানিয়া মিশনের শিশু নগরীতে তার বেড়ে ওঠা। সেখানে থেকে এবারে এসএসসি পাশ করে সে। পেয়েছে জিপিএ-৫। তার বাড়ি গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের মাদারি পাড়া নামক এলাকায়। জিপিএ-৫ অর্জনে উচ্ছসিত সুমন। 

সে বলেছে, ছোটবেলা থেকেই এই মিশনে আছি। এটাই আমার বাসস্থান। এখান থেকে প্রাথমিক শেষ করে মাধ্যমিকে ভর্তি হয়েছি। প্রাথমিকেও জিপিএ-৫ ছিল আমার। সুমন চিকিৎসক হতে ইচ্ছুক। পঞ্চগড় সদরের হাফিজাবাদ ইউনিয়নের মাঘই পানিমাছ পুকুরি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেন। সে বিদ্যালয়ের এবারের একমাত্র জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী। অনাথ, ছিন্নমূল এবং বঞ্চিত ও হারিয়ে যাওয়া পথশিশুদের সুন্দর ভবিষ্যত গড়তে ২০১২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এই প্রতিষ্ঠান।

জানা গেছে, জন্মের পরপরই সুমন রানার কৃষক বাবা হাসমত আলী মারা যান। শুরু হয় পরিবারে টানাপোড়েন। ৭ সন্তানকে নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েন মা খোদেজা বেওয়া। থাকতে হতো খেয়ে না খেয়ে। তার লোখাপড়া ছিল দুঃস্বপ্নের মতো। সুমনের বয়স যখন ৭ বছর ঠিক তখন এক সমাজকর্মীর মাধ্যমে এই শিশু নগরীতে ঠাঁই হয় তার। সুমন জানায়, এই শিশু নগরীতে ঠাঁই না হলে পড়ালেখা অসম্ভব ছিলো। মিশন কর্তৃপক্ষ এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের যথেষ্ট আন্তরিকতা ছিল বলেই আজকে আমি এই ফলাফল
অর্জনে সক্ষম হয়েছি। আমার স্বপ্ন ভবিষ্যতে আমি চিকিৎসক হয়ে অসহায় মানুষের সেবা করতে চাই। তার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রোকসানুল হক প্রধান (লিয়ন) বলেন, সুমন রানা এক সংগ্রামী বালক। অসম্ভব মেধাবী এই শিক্ষার্থী বরাবরই ক্লাসে ফার্স্ট ছিলো এবং শেষটাও ভালো করেছে। সুমন রানা অন্য শিক্ষার্থীদের অনুপ্রেরণা হতে পারে। যেখানে সাধারণ শিক্ষার্থীরা সকল সুযোগ সুবিধা থাকার পরও এমন সাফল্যের নাগাল পায় না; সেখানে সুমন সুবিধা বঞ্চিত হয়েও আমাদের বিদ্যালয়ের সুনাম বাড়িয়েছে। আহছানিয়া শিশু মিশন নগরীর তথ্য মতে, সুমন রানা ছাড়াও এবছর এখানকার আরো ৫ জন এসএসসি পাশ করেছেন। তবে তারা জিপিএ-৫ পাননি। গত বছরও ৬ জন এসএসসি পাশ করে এখান থেকে। সে বছরও একজন জিপিএ-৫ পায় এই শিশু নগরী থেকে। শিশুদেরকে নগরীর অভ্যন্তরে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ানো হয়। এরপর তারা মাধ্যমিকে স্থানীয় স্কুলে ভর্তি হয়। বর্তমানে এখানে ১৬০ জন শিশু রয়েছে। তাদের যাবতীয় খরচ বহনসহ মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণ করে আহছানিয়া মিশন।

শিশু নগরীর কৃষি কর্মকর্তা সেলিম প্রধান বলেন, বিভিন্নভাবে বঞ্চিত শিশুদের এখানে ঠাঁই হয়। শুরুর দিকে শিশুরা থাকতে না চাইলেও একটু বড় হবার পর তারা অনেক কিছু বুঝতে শিখে। তারা বুঝতে পারে এটাই তাদের মূল ঠিকানা। 

 

সান

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত