36 C
Dhaka
Saturday, January 23, 2021
No menu items!

মেহেরপুরে রেজিস্ট্রি অফিস বন্ধ: অসহায়ত্ব মানবেতর জীবনযাপন করছে নকল নবিসরা

মোঃ ইসমাইল হোসেন জেলা প্রতিনিধি মেহেরপুর: বিশ্ব মহামারী করোনা ভাইরাসের ক্রান্তিকালে মেহেরপুর সহ সারা দেশে আজ জেলা ও সাব রেজিস্ট্রি অফিসগুলো বন্ধ। দেশের বেশির ভাগ মানুষ নিম্নবিত্ত ও শ্রমিক শ্রেণীর। মেহেরপুর জেলার সরকারী রেজিস্ট্রি ও সাব রেজিস্ট্রি অফিসে কাজের বিনিময়ে পারিশ্রমিক পাওয়া অসহায়ত্ব মানবেতর জীবনযাপন করছে এক্সট্রা মোহরার বা নকল নবিসরা।

মেহেরপুর জেলার ক’য়েকজন নকল নবিসদের সাথে কথা বলে জানতে পারা যায়- গত মার্চ-২০২০ খ্রিঃ মাসে তাঁদের কাজের বিনিময়ে এখনও পর্যন্ত যে পারিশ্রমিক পাওয়ার কথা তা করোনা ভাইরাসের কারণে অফিস লক ডাউন থাকায় পায়নি।

এদিকে বাংলাদেশ সরকারের জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন দোদুল (মেহেরপুর-১ এমপি)-এর বিষয়টি দৃষ্টিগোচর হলে তাৎক্ষনিকভাবে নির্দেশক্রমে, এক্সট্রা মোহরার (নকল নবিস) এ্যাসোসিয়েশনের সেন্ট্রাল কমিটির সভাপতি হিরণের নেতৃত্বে, মেহেরপুর জেলা প্রশাসক মহোদয়ের মাধ্যমে- জেলার নকল নবিসদের ১৫ কেজি করে চাউল বিতরণ করা হয়।

মেহেরপুর জেলার নকল নবিসদের সংখ্যা জানতে, জেলা রেজিস্ট্রি অফিসের প্রধান সহকারী মোছাঃ ফরিদা ইয়াসমিনের সাথে যোগাযোগ করে যানা যায়- মেহেরপুর জেলার নকল নবিস পদে আছে মোট ১০৭ জন। তার মধ্যে জেলা রিজিস্ট্রি (সদর) অফিসে ৫৪ জন, গাংনী সাব রেজিস্ট্রি অফিসে ৪৩ জন ও মুজিবনগর সাব রেজিস্ট্রি অফিসে ১০ জন। এমনিতেই ভলিয়ম কম থাকায় কাজ ঠিক মত পায় না। তার ওপর গত মার্চ-২০২০ খ্রিঃ মাস থেকে লক ডাউন থাকায় সাব- রেজিস্ট্রি অফিস বন্ধ।

করোনা ভাইরাসের কারনে অফিস বন্ধ থাকলেও আমরা ছাড়া সবাই সরকারের কাছ থেকে বেতন পাচ্ছেন। আমরা কিভাবে চলছি, এবারের ঈদ কিভাবে পার করবো, বাবা-মা, স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে সংসার কিভাবে চালাবো, সবাই সবার খোঁজ রাখছে, কিন্তু আমাদের সংসার কিভাবে চলে, কেউ খোঁজ নেয় না। জানান ক’য়েকজন নকল নবিসরা। বেশির ভাগ নকল নবিসদের পরিবার দুর্বিসহ জীবনযাপন করছে। আমরা না পারছি কারো কাছে হাত পাততে, না পারছি আমাদের ন্যায্য পাওনা আদায় করতে।

জানা যায়, দলিল সম্পাদনের ইতিহাস অনেক পুরোনা হলেও সম্পত্তি বেঁচাকেনায় প্রতারণা বন্ধ এবং ভূমি রাজস্ব আদায়ের স্বার্থে ১৭৮১ সালে উপমহাদেশে প্রথম রেজিস্ট্রি আইন প্রবর্তিত হয়। সে সময় থেকেই দলিল রেজিস্ট্রি ও দলিলের নকল লেখার জন্য নকল নবিসের পদ সৃষ্টি হয়। পদ সৃষ্টি হলেও প্রায় ২৩৯ বছর ধরে মাস্টার রোলে কাজ করতে হচ্ছে।

দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রাম করার পরও তাদের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়নি। প্রশাসনিক জটিলতাসহ নানা কারণে চাকরি স্থায়ীকরণ হয়নি। অথচ ১৯৫৮ সালে কালেক্টরেট, জজ কোর্ট, হাইকোর্ট এবং সরকারের বিভিন্ন দফতরে কর্মরত নকল নবিসদের চাকরি স্থায়ীকরণ করা হয়।

১ মাসে একটি ৩০০ পাতার বালাম লিখলে ৭২০০ টাকা পান। মাসে ২ টার বেশি লেখা যায় না। ভলিউম সংকট থাকার কারণে কাজও কম হয়। প্রতি মাসে কাজের উপর ভিত্তি করে বেতন দেওয়া হয়। নকল নবিস মোঃ ফিরোজ খাঁন বলেন প্রতি বছর ২ জন করে স্থায়ীকরণ করার কথা থাকলেও তা নানা জটিলতার কারণে হচ্ছে না। এমনিতেই প্রতি মাসের বেতন নিয়মিত পাই না। এখন তো অফিসই বন্ধ।

এমতবস্থায় ক’য়েকজন নকল নবিসরা বলেন- পরিবার নিয়ে খুব খারাপ সময় পার করছে। এই মুহুর্তে কমপক্ষে নকল নবিসরা যাতে সংসার চালাতে পারেন, পরিবার নিয়ে ভাল ভাবে স্বাচ্ছন্দে এবারের ঈদ করতে পারেন সরকারের কাছে এই সহযোগিতা চান তাঁরা। গণ-প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এই আবেদন জানান।

সর্বশেষ

উদ্বোধনের অপেক্ষায় বাগেরহাটে ভূমিহীনদের জন্য নির্মিত ৪৩৩ ঘর

বাগেরহাট প্রতিনিধি : মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে বাগেরহাটে ভূমিহীনদের জন্য নির্মিত ৪৩৩টি ঘর উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধনের...

৭ বছরের শিশু ধর্ষণের অভিযোগে যুবকের বিরুদ্ধে মামলা

বাগেরহাট প্রতিনিধি: বাগেরহাটে সাত বছর বয়সি এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে এনাম শেখ (২২) নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি)...

শরণখোলা ছাত্রলীগে বিভক্তি সংবাদ সম্মেলনে কমিটি থেকে বাদ পড়া নেতারা

বাগেরহাট প্রতিনিধি: তিন বছর পর হঠাৎ করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণায় দুই ভাগে বিভক্ত হয়েছে শরণখোলা উপজেলা ছাত্রলীগ। জেলা কমিটি থেকে এক সংবাদ...

বাগেরহাটে সরকারী রাস্তার গাঁছ বিক্রি করছে একটি চক্র

বাগেরহাট প্রতিনিধি: বাগেরহাটের কচুয়ায় সরকারী রাস্তার পাশের গাঁছ কেটে বিক্রি করছে গাছ খোকো একটি চক্র। কিছু অসাধূ ব্যাক্তির সাথে গোপনে আতাঁত করে...

বাগেরহাটে মাছের খামারে ঘুরে দাড়িয়েছে বনানীর সংসার

বাগেরহাট প্রতিনিধি: বাগেরহাটের চিতলমারীতে ‘আমার বাড়ি, আমার খামার’ প্রকল্পে’র ক্ষুদ্র ঋণ দারিদ্র্য বিমোচনে বিশেষ ভূমিকা রাখছে। এ উপজেলার বেকার যুবক-যুবতী, গৃহিণী ও...