36 C
Dhaka
Thursday, January 28, 2021
No menu items!

তোমরা আবার ফিরে এসো নতুন জীবনেঃ

দেবপ্রিয় বড়ুয়া

মন ভীষণ অশান্ত। নির্ঘুম রজনী পার করলুম। মৃত্যুর শবমিছিলে আমরাও যেন সহযাত্রী। আমরা যারা প্রিয়জন হারাচ্ছি তারা জানি কিরকম মর্মযাতনা, অসহায়ত্ব, প্রিয়বিয়োগজনিত রোরুদ্ধমানতা আমাদের হৃদয়কে খানখান করে দিচ্ছে। একদিনের ব্যবধানে বাবা ও মা একটি পরিবারের জীবন থেকে যখন হারিয়ে যায় তখন আমরা কি অসহায় হয়ে পড়ি তা কিভাবে বর্ণনা করবো ? গতকাল প্রিয়জন একেবারে বিনা নোটিশে যখন চলে গেলো তখন তার লৌকিক জীবনের অবিনাশী চেতনার, সামাজিক ভাবনার মংগলময়তার কথা লিখে শোক জানিয়েছিলাম।

আজ রাতের প্রথম প্রহরে যখন তাদের মা ও মৃত্যুর হিমশীতল হাতছানি ছিনিয়ে নেয় ভাবছিলাম আর কি লিখবো ? মন যেন পাথর হয়ে যায়। আমাদের সমীরণ বড়ুয়া বর্নাঢ্য জীবনের অধিকারী। তিনি একাধারে সমাজকর্মী, ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদ, সারাজীবন ‘পরের কারণে স্বার্থ দিয়া বলি এজীবন মন সকলি দাও, তার মতো সুখ কোথাওকি আছে আপনার কথা ভুলিয়া যাও’ এভাবেই নিজেকে উৎসর্গ করেছেন। তিনি নিজে বড় হয়েছেন অপরকে বড় করেছেন যেটা অনেকের পক্ষে সম্ভব নয়। অথচ এমন মহানুভব লোকের মৃত্যুতেও অহংসর্বশ্ব, স্বার্থবাজ লোকদের রোষানল ও স্হানীয় প্রতিদ্ধন্ধী নোংরা রাজনীতির শিকার হন তখন আমরা হতাশ হয়ে পড়ি। তাই আজ সন্ধ্যায় যখন তার প্রিয় সহধর্মিণী হীরুর মৃত্যু সংবাদ আসে আমরা প্রিয়জনেরা আরো ভেংগে পড়ি। তখন কি লিখবো – কার মৃত্যু সংবাদ জানাবো ? কোন স্টাটাসই আর দিবনা মনে করেছিলাম। কিন্তু দূচোখের পাতা এক হয়নি, খবরাখবর ফোনে ফোনে দিলাম আর নিলাম। লকড-ডাউনের মধ্যে বের হওয়ার কোন অবকাশ নেই। যেন মৃত্যুর উপত্যকায় দাঁড়িয়ে আছি। সেকথা কয়দিন আগেও লিখেছি। মৃত্যুযে এভাবে হানা দেবে ভাবিনি। ধনী, নির্ধন, নির্বিচারে কেড়ে নিচ্ছে প্রিয়জনদের।

আমরা জানতে পারছি কোভিড-১৯ এর ঔষধ কনভেনশনাল ২টি ট্যাবলেট (ইভারমেকটিন সিংগেল ডোজের সাথে ডক্সিসাইক্লিন খেলে মাএ ৩ দিনে ৫০% উপসর্গ হ্রাস পায়, এবং ৪ দিনে পুরোপুরি ভাইরাস মুক্ত হয়ে যায়।বাংলাদেশি চিকিৎসক ডা: তারেক আলম এ’সম্পর্কে বলেন, ”এটি আমাদের কাছে রীতিমত বিস্ময়কর লেগেছে। আরো আগে যদি আমরা ওষুধ নিয়ে কাজ করতাম, তবে এতোদিনে অনেককে হারাতে হতো না।” (https://bit.ly/2T9q4Lk) দিয়ে ভালো হচ্ছে। বাংলাদেশের ডাক্তারেরা প্রায় ৬০ জন রোগীকে সারিয়ে তুলেছেন। যেন আশার পিদিম দেখতে পেয়ে ভাইরাল হওয়া দুটি স্টাটাস টাইমলাইনে শেয়ার করলাম। সরকারী ডাক্তার ভাইপোর সাথে গভীর রাতে কথা বললাম। সে জানালো তারা জানে ঐসব ঔষধ আমাদের দেশে আছে। সেগুলো দিয়ে পরীক্ষা-নিরিক্ষা চলছে তবে এখনো আমাদের সরকারী স্বাস্থ্য অধিদফতরের গাইডলাইনে না আসা পর্যন্ত আমরা অফিসিয়ালি কিছুই বলতে পারিনা। তবে এ’ঔষধ প্রয়োগ করে উপকার বা সুস্হ হচ্ছে তা আমরা জানি। এগুলোর সাথে সাথে আরো অনেক ফ্যাক্টর কাজ করে। রোগীর ইমিউন সিস্টেম কত স্ট্রং বা রোগী কোন পর্যায়ে আছে মডারেট না সিভিয়ার তার উপরও সুস্হতা নির্ভর করে। আরো কয়েক হাজার রোগীর উপর এ’ঔষধ এপ্লাই করার পর গাইডলাইন তৈরী হলে আমরা ব্যাপকহারে তার ব্যবহার শুরু করবো। মন আবার থমকে গেলো। স্টাটাসে পরিপুরক কমেন্ট দিয়ে সতর্কবার্তা দিলাম। কারণ এরিমধ্যে অনেকে ঔষধের ব্যবহারবিধিও জানতে চায়। কেউ যেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঐ ঔষধ ব্যবহার না করেন।

আমার স্টাটাসে কোন সাহিত্যরসে সিক্ত নয়। সব যাপিত জীবন থেকে তুলে আনা দৈনন্দিন জীবনের সত্য ঠিকুজী। এরিমধ্যে ঢাকা থেকে এক বন্ধু জানাল গতরাতের আগের রাত তার পিতৃসম এক বেসরকারি ব্যাংক কর্মকর্তা কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে কয়েক ঘন্টার মধ্যে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যায়। মারা যাওয়ার পর থেকে তাকে দাফন করার জন্য মীরপুরের কবরস্থানে তাদের ক্রয়কৃত কবরে দাফন করতে দিতে কতৃপক্ষ রাজী হয়নি। আহা বন্ধুরা ! সারাদিনমান কত জনের সাথে ফোনে যোগাযোগ, কান্নাকাটি করলো কিন্তু নির্দয় কতৃপক্ষ রাজী হয়নি। শেষপর্যন্ত গতকাল বিকেল ৫ টায় গণকবরে দাফনকাজ সমাপ্ত করেছে। কি হৃদয় বিধারক ঘটনা ! কি ভয়াবহ অমানবিক সমন্বয়হীনতার শিকার আমরা হচ্ছি। যারা আমাদের মতো সাধারণ জনগণের সাথে, সাধারণ কেনো বলবো চট্টগ্রাম ও ঢাকার আমার পরিচিত এ’দূজন আত্বীয় ও বান্ধব তারা দেশের প্রথম শেণীর ট্যাক্সপেয়ী সন্মানিত নাগরিক। তাঁদের দেওয়া ট্যাক্সের টাকায় দেশের এই উন্নয়ন। তাঁরা তিনজনেই দেশের ধনার্ঢ্য ব্যক্তি। কিন্তু মরনের পর কি ধরনের ব্যবহার দেশ ও জাতির কাছ থেকে তারা পেলেন ?

আমি এখনো জানিনা আমার প্রিয় বোনটির মরদেহ তাদের গ্রামে তারা গতরাতে নিয়ে যেতে পেরেছে কিনা ? ছেলেমেয়েরা এখন কি করছে ? আজ তার মরদেহ তাদের গ্রামে নিজস্ব শ্বশানে দাহক্রিয়া হবে। পাশাপাশি স্বামী -স্ত্রী দুজনে চিরনিদ্রায় শায়িত হবে। কবিগুরু মৃত্যু কবিতায় বলেছেন –
আজিকে হয়েছে শ্রান্তি, জীবনের সব ভূল ভ্রান্তি, সব গেছে চুকে।
রাত্রি-দিন ধুক ধুক, তরংগিত দূঃখ-সুখ থামিয়াছে বুকে।
যা কিছু ভালোমন্দ, যা কিছু দ্ধিধা-দন্ধ, কিছু আর নাই।
বলো শান্তি, বলো শান্তি, নিঃশেষে হয়ে যাক চাই।”
তোমরা আবার ফিরে আসো আমাদের মধ্যে নতুন জীবনে, নবতর ভাবে এই আমাদের প্রার্থনা।

সর্বশেষ

টিকাদান কর্মসূচি সফল করতে আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করুন : প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ কোভিড-১৯ প্রতিরোধক ভ্যাকসিন প্রদান কর্মসূচি সফল করতে সবাইকে আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন,...

সমালোচনাকারীদের আগে ভ্যাকসিন দেবো: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: ভ্যাকসিন নিয়ে যারা বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেন বা সমালোচনা করেন তাদের আগে ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। বুধবার (২৭...

দেশ উন্নত হওয়ায় ভোটে অনীহা, যুক্তরাষ্ট্রের লক্ষণ বাংলাদেশে: ইসি সচিব

নিউজ ডেস্ক: দেশ উন্নত হওয়ায় ভোটে অনীহা, যুক্তরাষ্ট্রের লক্ষণ বাংলাদেশে। দেশে ভোটারদের কিছুটা অনীহা বলা যায়। উন্নত বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে ভোটের ক্ষেত্রে...

৪৩তম বিসিএস আবেদনের সময় বাড়ল ২ মাস

নিউজ ডেস্ক: ৪৩তম বিসিএস আবেদনের সময়সীমা দুই মাস বাড়িয়েছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। আবেদনের সময় ৩১ জানুয়ারির পরিবর্তে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত...

৪০তম বিসিএসের ফল প্রকাশ: উত্তীর্ণ ১০৯৬৪ জন

নিউজ ডেস্ক: ৪০তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। বুধবার (২৭ জানুয়ারি) সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) বিশেষ সভায় লিখিত পরীক্ষার ফলাফল...