36 C
Dhaka
Monday, January 18, 2021
No menu items!

অন্ধকারে আলোর বর্তিকা

কেশব মুখোপাধ্যায়

১৯৯২ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত প্রায় প্রতি বছর ঢাকা গিয়েছি । প্রথমবার -সহ মোট তিনবার একুশে ফেব্রুয়ারি ও অন্য বিষয়ে আমন্ত্রিত হয়ে, এছাড়া অন্যান্য বার নিজস্ব সম্পাদিত ‘স্বাধীন বাংলা’ পত্রিকার জন্য লেখা, সাক্ষাৎকার ইত্যাদি সংগ্রহের লক্ষ্যে । প্রতিবারই কয়েকদিন ঢাকায় অবস্থান ক’রে, ‘স্বাধীন বাংলা’ পত্রিকার জন্য লেখা ও সাক্ষাৎকার সংগ্রহ করে এনেছি । সেই তালিকায় আছেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত কবি, লেখক, বুদ্ধিজীবী, শিল্পী, ভাষা আন্দোলনের নেতা । কিন্তু সেই তালিকায় নেই অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান । কেন নেই, তা আমার নিজের কাছেই, নিজের এক বড় প্রশ্ন ! উত্তর খুঁজে পাই না । এমনও নয় যে, তাঁর লেখার সঙ্গে আমার পরিচয় ছিল না । বরং ভাষা ইত্যাদি বিষয়ে তাঁর একাধিক লেখার পুনর্মুদ্রণ ‘স্বাধীন বাংলা’ পত্রিকায় ছাপা হয়েছে । এছাড়া অধ্যাপক আনিসুজ্জামান সম্পাদিত এবং ‘শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্মৃতিরক্ষা পরিষদ’ কর্তৃক প্রকাশিত : ‘শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্মারক গ্রন্থ’ আমি সংগ্রহ করি ১৯৯৫ সালের প্রথম দিকে ।

ওই স্মারক গ্রন্থ পাঠে, ভাষা আন্দোলনে শহিদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত তৎকালীন মুসলিম লিগ শাসিত পাকিস্তানে, কী ভয়াবহ রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রেক্ষাপটে বাঙালি জাতির জন্য যে ঐতিহাসিক ভূমিকা রেখে গেছেন, তা অনুধাবন করেছিলাম । পাকিস্তানের বর্বর শাসকরা যা কোনো দিন ভুলতে পারেনি । ১৯৭১-এর ২৫ মার্চের কালো রাত্রির সামান্য কয়েকদিন পর, পাকিস্তান হানাদার বাহিনী এবং তাদের রাজাকার দোসররা, ২৯ মার্চ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত এবং ছোট ছেলে দিলীপ দত্তকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায় । পরবর্তী সময়ে তাঁদের দেহেরও খোঁজ পাওয়া যায়নি !

অধ্যাপক আনিসুজ্জামান-এর সঙ্গে আমার সাক্ষাৎ ২০১৩ সালে কলকাতায় । ওই বছর দক্ষিণ কলকাতার বৈষ্ণবঘাটা পাটুলি বইমেলায় অনুষ্ঠিত, পশ্চিম বাংলা ও বাংলাদেশের সাহিত্য বিষয়ে এক আলোচনা সভায় তিনি আমন্ত্রিত বক্তা হিসেবে অংশগ্রহণ করেন । সভায় অপর বক্তা ছিলেন মহাশ্বেতা দেবী । বইমেলার উদ্যোক্তাদের অনুরোধে আমাকে সভাটি সঞ্চালনার দায়িত্ব পালন করতে হয়েছিল ।

সভার আগে বেশকিছু সময় নিভৃতে অধ্যাপক আনিসুজ্জামান-এর সঙ্গে বাংলা, বাঙালি, বাংলাদেশ, পশ্চিম বাংলা ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা করে সমৃদ্ধ হয়েছি । সেদিন তাঁকে ‘স্বাধীন বাংলা’ পত্রিকার পুরানো কয়েটি দিয়েছিলাম । এবং কথা হয়েছিল আমি ঢাকা গেলে তাঁর একটি সাক্ষাৎকার নেব । কিন্তু নানা ঝামেলায় আমার ঢাকা যাওয়া হয়নি এবং …।

সেদিনের ওই বৈঠকে, শহিদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্মারক গ্রন্থ প্রসঙ্গে তিনি বলেছিলেন, ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত-র ঐতিহাসিক ভূমিকার অবস্থান থেকেই শুধু নয়, একটি অসাম্প্রদায়িক ও ধর্মনিরপেক্ষ দৃষ্টিকোণ থেকে, ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস পর্যালোচনার জন্যও ওই স্মারক গ্রন্থের প্রয়োজন অনুভব করেছি । কারণ সবকিছু ক্ষতিকর সাম্প্রদায়িক দৃষ্টিকোণ থেকে মূল্যায়ন বিচার করার প্রথা সমাজে বর্তমান ।

যা বাঙালি জাতির সামগ্রিক বিকাশে এক প্রধান বাঁধা। তিনি বলেছিলেন, ধীরেন্দ্র দত্ত যদি ইন্ডিয়ায় চলে আসতেন, তবে এখানে এসে তিনি মন্ত্রী হতেন । অন্যদিকে সাম্প্রদায়িক দ্বি-জাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে এবং মুসলিম লিগ শাসিত রাষ্ট্রে তাঁর পরিণতি কী হতে পারে, তাও তিনি জানতেন । এসব জেনে বুঝেই তিনি পাকিস্তান গণপরিষদে বাংলা ভাষার দাবি উত্থাপন করেছিলেন । এটা খুব সহজ ব্যাপার নয় । এবং তাঁর ওই দাবি থেকেই বাংলা ভাষা আন্দোলনের আরম্ভ বলা যায় ।

অধ্যাপক আনিসুজ্জামান-এর চলে যাওয়া পরিণত বয়সেই, কিন্তু এক কঠিন সময়ে তাঁর যাওয়া । অবশ্য যে আদর্শ তিনি রেখে গেছেন, তা অনুসরণ ক’রে, সমবেত ভাবে তাঁর অভাব আমরা অবশ্যই কিছুটা পূরণ করতে পারি, যদি আন্তরিক ও সচেষ্ট হই

অধ্যাপক আনিসুজ্জামান-এর প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা ।

কেশব মুখোপাধ্যায়, লেখক, সাংবাদিক ও সংগঠক কলকাতা

সর্বশেষ

তুরস্কের বিশিষ্ট কবি ক্যারোলিন লরেন্ট তুরুনে

তুরস্কের বিশিষ্ট কবি তিনি এখন থাকেন আমেরিকায় । তার গ্রন্হ ৫টি।ক্যারোলিন লরেন্ট তুরুনের লেখা ইংরেজি থেকে বাংলায় অনুবাদ করেছেন প্রখ্যাত কবি রেজাউদ্দিন...

ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে মুক্তিযোদ্ধাদের খসড়া তালিকা প্রকাশ: মন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে মুক্তিযোদ্ধাদের খসড়া তালিকা প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

২৫ থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত জনশুমারির মূল শুমারি অনুষ্ঠিত হবে

নিউজ ডেস্ক: আগামী ২৫ থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত জনশুমারির মূল শুমারি অনুষ্ঠিত হবে। এ এক সপ্তাহের সারা দেশের মানুষকে গণনার আওতায় আনা...

কথা রাখছেন’ ট্রাম্প সমর্থকেরা, বাইডেনের অভিষেক ঘিরে সশস্ত্র মহড়ায় সমাবেশ

‘নিউজ ডেস্ক: কথা রাখছেন মার্কিন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উগ্র সমর্থকরা। বড় আকারে সমাবেশের আয়োজন না করতে পারলেও ওহাইও অঙ্গরাজ্য থেকে ওয়াশিংটন...

মারা গেলেন হত্যার দায়ে সাজাপ্রাপ্ত সংগীত প্রযোজক

নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের প্রখ্যাত সংগীত প্রযোজক ফিল স্পেক্টর ৮১ বছর বয়সে মারা গেছেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত হত্যার দায়ে কারাবন্দী ছিলেন তিনি। এক...