36 C
Dhaka
Saturday, January 23, 2021
No menu items!

করোনা মহামারী ও সম-সাময়িক ভাবনা

সায়েদুর রহমান

একটি অস্থির সময় পার করছে বিশ্ববাসী। বাংলাদেশের মানুষও তার বাইরে নয়। করোনার এ মহামারীর সময় মানুষ নিশ্চিতভাবেই তার মনুষত্ব্য বিসর্জন দিয়েছে। তা নাহলে মৃত মানুষের লাশ রাস্তায় পড়ে থাকতে পারেনা, অসুস্থ মানুষকে মধ্যরাতে কেউ ঘর থেকে বের করে দিতে পারেনা। একমাসের বাসা ভাড়া না দিতে পারার কারণে কাউকে পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে দেয় কীভাবে? সেই দিতে পারে যার মনুষত্ব্যের মৃত্যু ঘটেছে। ছেলে-মেয়ে আত্মীয়-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশী ও পরিচিতজন সবাই আজ এ দুর্যোগে হয়ে গেছে অমানবিক। তাই সৎকারের জন্য লাশ গ্রহণে আজ সকলে অপারগতা জানাচ্ছে, সকলেই সরে যাচ্ছে দূরে। আমি ঠিক জানিনা এমন অমানবিক পৃথিবীর মানুষ শেষবার হয়েছিল কখন, কবে? কখন, কবে মানুষ রক্তের বন্ধনকে অস্বীকার করেছিল এমন করে?

জাতীয় দুর্যোগ ও মহামারীর এ সময় যখন আমাদের সকলের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দেশের গরীব, অভাবী ও প্রান্তিক মানুষের পাশে দাড়ানোর কথা, তখন আমরা দেখতে পাচ্ছি ত্রাণ সামগ্রী লুটের মহোৎসবে যোগ দিয়েছে আমাদের তথাকথিত জনপ্রতিনিধিরা। আমরা দেখতে পাচ্ছি সরকারের ঘোষিত প্রণোদনার টাকার জন্য ব্যাকুল হয়ে উঠেছেন দেশের বিত্তশালী ব্যবসায়ী সমাজ। অনেক ক্ষেত্রে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসা প্রদানে গাফিলতির অভিযোগ উঠছে, রয়ে গেছে চিকিৎসা সামগ্রীর অপ্রতুলতার অভিযোগ।

আমার ধারণা করোনার এ দুর্ভোগের পরও বছর শেষে আয় এবং সম্পদ দুটোই বাড়বে সোনার চামচ মুখে নিয়ে জন্ম নেয়া দেশের ব্যবসায়ী লুটেরা গোষ্ঠীর। বছর শেষে মন্ত্রী, এমপি আর আমলাদের সম্পদের পাহাড় জমবে বিদেশের মাটিতে। দেশের ধর্মান্ধ মৌলবাদী গোষ্ঠী আবারো ধর্মের নামে ধ্বংসের লীলাখেলায় মেতে উঠবে। ধর্ম ব্যবসায়ীরা পুনরায় গেয়ে যাবে বিভক্তি ও হানাহানির গান। ঘৃণার বিষ ছড়াবে, মানুষকে হত্যার কথা বলবে, বলবে দেশ থেকে সংখ্যালঘু ও বিধর্মীদের উচ্ছেদ ও বিতাড়নের কথা। দেশে সংখ্যালঘুদের জায়গা-জমি আবারো জবর-দখল হবে, আবারো হবে তাদের স্বপ্ন চুরি। দেশের গরীব মানুষ আরো গরীব হবে, বাড়বে নগরে ছিন্নমূল, অভাবী ও নিঃ¯^ মানুষের ভীড়।

অথচ আমাদের দেখার কথা ছিল এর উল্টোচিত্র। করোনার এ মহামারী হতে আমাদের আত্ম-সংযম ও আত্মত্যাগের শিক্ষা নেবার কথা ছিল। আমাদের দীক্ষিত হবার কথা ছিল সততা ও মিতব্যয়িতার। আমাদের জীবন আত্মশুদ্ধির পারদে মাপা উচিত ছিল। এ জীবন আসলেই কিছু নয়, যেকোন মূহুর্তে নিভে যেতে পারে জীবনের বাতি। তাই ভোগ-বিলাস ও অঢেল সম্পদের চিন্তা বাদ দিয়ে আমাদের আত্ম-মানবতার সেবায় নিজেদের নিয়োজিত করা উচিত ছিল।

যদি আমরা করোনার এ মহামারী হতে শিক্ষা নিয়ে তা করতে পারি তবে হয়তো বর্তমান মানবসভ্যতা টিকে থাকবে আরো হাজার বছর। তা নাহলে হয়তো অচিরেই ধ্বংস হয়ে যাবে আমাদের বর্তমান মানবসভ্যতা এবং আমরা ডাইনোসরদের মত বিলীন হয়ে যাব একেবারে।

লেখক: অষ্ট্রিয়া প্রবাসী বাংলাদেশি।

সর্বশেষ

আইপিএল ২০২১: এবার যাঁরা আছেন, যাঁরা নেই, নিলাম যখন

খেলাধুলা ডেস্ক: আগামী এপ্রিল-মে মাসে মাঠে গড়াতে পারে আইপিএলের ১৪তম সংস্করণ। নতুন এ সংস্করণের পরিকল্পনা নিয়ে এর মধ্যে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো কাজ করা শুরু...

মুজিববর্ষে শেখ হাসিনার উপহার: ঘর পেল ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবার

নিউজে ডেস্ক: ভূমিহীন-গৃহহীনদের একটি সুন্দর ঘরের স্বপ্ন পূরণের প্রথম ধাপে প্রায় ৭০ হাজার পরিবার পেলো একটি আধাপাকা বাড়ি। মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার...

ভ্যাকসিনবিষয়ক ‘সুরক্ষা অ্যাপ’ ২৫ জানুয়ারি হস্তান্তর: প্রতিমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: করোনা ভ্যাকসিন বিষয়ক অ্যাপ ‘সুরক্ষা’র নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। সব ধরনের প্রস্তুতি পর্বও সম্পন্ন হয়েছে। আগামী ২৫ জানুয়ারি তথ্য ও যোগাযোগ...

ক্যাপিটল হিলে ফ্যাশন নয়, পোশাকে মহামিলনের বার্তা

নিউজ ডেস্ক: ক্যাপিটল হিলে স্বাগত জানানো হয়েছে নতুন অতিথিদের। এরই মধ্যে দিয়ে আমেরিকার রাজনৈতিক ইতিহাসে নতুন অধ্যায়ের সূচনাও হয়েছে। নতুন প্রেসিডেন্ট জো...

নায়ক রাজ রাজ্জাকের সঙ্গে নায়িকাদের প্রথম দেখা, শেষ দেখা

নিউজ ডেস্ক: অভিনেত্রী সুচন্দার মতে, সহশিল্পীদের কাছে রাজ্জাক ছিলেন সহজাত। কবরী জানালেন, তাঁদের মধ্যে মান-অভিমানের শেষ ছিল না। শুধু অভিনয় দিয়েই দেশ–বিদেশের...