36 C
Dhaka
Monday, January 25, 2021
No menu items!

ট্রাম্প কী পারবেন?

আবু সাঈদ লীপু

উত্তর হচ্ছে, তিনি সম্ভবত আর কখনওই আমেরিকাকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হবেন না। তা যত কঠিন চেষ্টাই তিনি করুন না কেন। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে ইশ্বর প্রার্থনাই নির্বিঘ্ন শ্বাস-প্রশ্বাসের পথিকৃত। সুতরাং খ্রিস্টানদের পবিত্র রবিবার দিনে চকচকে অ্যাব্রাহাম লিংকনের গম্ভীর মুর্তির সামনে বসে তার চমৎকার স্বর্গীয় অনুভূতি হতেই পারে। ফলে সেখানে বসে নিজস্ব সাংবাদিকের কাছে তিনি বাঁধাহীন করোনাভাইরাস মোকাবেলায় নিজের সাফল্যগাঁথা বর্ণনা করতেই পারেন। কারণ সার্বিক প্রেসের সাথে তার সম্পর্কটা মধুর নয়।

সত্যি বলতে, ট্রাম্পের ভাবতে ভালোই লাগে যে, তিনি প্রেসের যথেষ্ট সাহায্য পাচ্ছেন না। তাঁর ভাষায় তিনি প্রেসিডেন্ট লিংকনের চেয়েও বেশী অসহযোগিতা পাচ্ছেন প্রেসের কাছ থেকে। কিন্তু ট্রাম্পের বোঝা উচিত প্রেসের সাথে তিনি অত্যন্ত খারাপ ব্যবহার করেন, প্রশ্নকারী সাংবাদিকদের রূঢ় ভাষায় আক্রমণ করেন। লিংকনের সাথে তুলনা করা তাই শুধুই খোঁড়া প্রচারণা। প্রেসিডেন্ট লিংকন গৃহযুদ্ধ কবলিত একটা দেশকে এক সুঁতোয় আনতে নিরলস সংগ্রাম করছিলেন। বহুধাবিভক্ত একটা জাতির নানামতের প্রেসকে মোকাবেলা করতে হয়েছে তাকে। তাই ট্রাম্পের বর্তমান অবস্থার সাথে লিংকনের তুলনা বোকার স্বর্গে বাস করার মত।

তারপরও ট্রাম্প তার নিজস্ব মিশনেই আছেন। তিনি অনবরত বলে যাচ্ছেন, দেশবাসীকে আশ্বস্ত করার চেষ্টা করছেন যে, করোনাভাইরাস মোকাবেলায় তিনি জাতিকে বৃদ্ধিদীপ্ত নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি শীঘ্রই ভাইরাসের প্রতিষেধক পেয়ে যাবেন। ফলে আমেরিকা অলৌকিকভাবে ভাইরাস থেকে মুক্তি পেয়ে যাবে। অতি দ্রতই সবকিছু পূর্বের মত স্বাভাবিক হয়ে যাবে। যেমনটা তিনি সাম্প্রতিক টুইটে বলেছেন, ‘আমি আশা করি খুব শীঘ্রই আমাদের দেশ শুদ্ধ হয়ে যাবে। আমরা সকলেই চমৎকার সেই র‌্যালি এবং অন্যান্য সবকিছুর অভাব বোধ করছি।’

আশ্চর্য হচ্ছে, প্রেসিডেন্টের কথায় মনে হয়, আমেরিকার জনগণ সত্যিই র‌্যালির অভাব বোধ করছে। আসলে তা কিন্তু নয়। একমাত্র ট্রাম্পই সেটা ভাবছেন। দিশেহারা জনগণের ট্রাম্পের র‌্যালি নিয়ে ভাবার অবকাশ নেই। কারণ র‌্যালি হচ্ছে কতকগুলো উল্লসিত মানুষের সামনে ট্রাম্পের সস্তা বক্তৃতা। এটা কোনক্রমেই উদ্বিগ্ন এবং দুঃখিত জাতির মর্মবেদনা বোঝার প্রয়াস নয়। র‌্যালি হচ্ছে নিছকই শ্লোগান। ভাইরাস সম্পর্কে ডাক্তার এবং স্টেট গভর্নরদের সতর্কবার্তা সঠিকভাবে তুলে ধরার জন্য এই র‌্যালি নয়। এটা হচ্ছে মৃতদের কষ্টকর সৎকার কর্মের ঠিক বিপরীত।

ট্রাম্পের জন্য এই বিষয়টা খুবই কঠিন। কারণ তিনি হচ্ছেন ঘনঘন বিষয় পরিবর্তনে চ্যাম্পিয়ন। চট করে এক বিষয় থেকে অন্য বিষয়ে চলে যাওয়ায় ভীষণ সিদ্ধহস্ত তিনি। অথচ সেই তিনিই এখন জাতিকে আশ্বস্ত করতে হিমশিম খেয়ে যাচ্ছেন। তিনি প্রচন্ড চেষ্টা করে যাচ্ছেন যেন জাতি তাকে সেইভাবে মূল্যায়ন করে। তিনি অনবরত বলে যাচ্ছেন, চীনই হচ্ছে একমাত্র দোষী এবং তিনি তা প্রমান করবেন। তিনি বলছেন, জানুয়ারির শেষেই তিনি করোনার ভয়াবহতা বুঝতে পেরেছিলেন। ফলে অনেক জীবন রক্ষা করা গেলো। অথচ পুরো ফেব্রুয়ারি এমন কি মার্চেও তিনি করোনাকে ¯্রফে উড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি স্টেট গভর্নরদের দুষছেন, পূর্ববতী প্রেসিডেন্টদের দুষছেন এমনকি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকেও দুষছেন। তিনি বলছেন, তিনিই একমাত্র মুক্তি দাতা। অথচ বাস্তবে এটা শুধুমাত্র তার মাথার মধ্যেই আছে।

অজ্ঞানতা বশতঃ তিনি নিয়তই পূর্ববর্তী সংখ্যা থেকে সরে আসছেন। করোনায় আমেররিকার মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। আর তিনি ৬০ হাজার থেকে সরে এখন ৭৫, ৮০ হাজার এমনকি ১ লক্ষও হতে পারে বলছেন। তিনি বলছেন চীনের উচিৎ ছিলো ভাইরাসকে থামিয়ে দেয়া। তারপরও তিনি খুবই সময়োপযোগি পদক্ষেপ নিয়েছেন। চীন থেকে মানুষের আগমন বন্ধ করেছেন। দেশের ইকোনমি থামিয়ে দিয়েছেন। তা না হলে ১২ লক্ষ, এমনকি ১৪/১৫ লক্ষ আমেরিকান মারা যেতে পারতো।

তারপরও সত্য কথা হচ্ছে, ট্রাম্প প্রচন্ড ক্রুদ্ধ। কারণ এই সার্বক্ষণিক বক্তব্যের পরও জনগণ তার কথা শুনছে না। সম্ভবত ভাইরাসও তার কথা শুনছে না। আমেরিকার জনগণ প্রতিদিন হোয়াইট হাউজ করোনা টাস্ক ফোর্সের ব্রিফিং দেখছে। ট্রাম্পের স্বঘোষিত মহিমা শুনছে, তার অভিযোগ, ক্ষোভ, রাগ সবই দেখছে। সাথে বিরক্তও হচ্ছে ভীষণ। বিভিন্ন সমীক্ষায় সেই বিরক্তি ধরা পড়ছে। পিউ রিসার্চের সমীক্ষা বলছে- ৮২ শতাংশ মানুষ মনে করে ট্রাম্প আত্ম-কেন্দ্রিক। মাত্র ৩২ শতাংশ মনে করে ট্রাম্প নৈতিকভাবে উন্নত।

কেন এমন হলো? হতে পারে জনগণ প্রেসিডেন্টের ব্যাপারে দুঃখিত। কারণ তিনি অনবরত বলে যাচ্ছেন যে, করোনার কারণে তিনি একটি চমৎকার ইকোনমি হারিয়েছেন। এটাকেই তার বিরাট ক্ষত বলে মনে হচ্ছে। অথচ জনগণ তাদের জীবন হারাচ্ছে প্রতিদিন। এ নিয়ে তার ট্রাম্পের কোন ভাবনা নেই। করোনাকে তিনি উড়িয়েই দিয়েছিলেন। ১৫ জন আক্রান্ত ছিলো একসময়। তিনি বলেছিলেন এই সংখ্যা শূন্য হয়ে যাবে। কিংবা সেই গরম আবহাওয়ার কথা। এপ্রিল আসলেই গরমে ভাইরাস মরে যাবে। জনগণ তা ভোলেনি, কখনও ভুলবেও না। নিউ ইয়র্ক টাইমস রিপোর্ট করেছে, হোয়াইট হাউজ থেকে বলা হচ্ছে, জুন থেকে প্রতিদিন ৩ হাজার করে আমেরিকান মারা যেতে পারে ভাইরাসের কারণে।

এই সংখ্যা যাই হোক, প্রকৃত সত্য হচ্ছে: ডোনাল্ড ট্রাম্প তার প্রার্থনা মিস করছেন, তার র‌্যালি, বিশাল জনসভা। তিনি বুঝাতে চাচ্ছেন সবকিছু ঠিক আছে কিন্তু তা নয়। তিনি বলতে চাচ্ছেন সবকিছু দ্রুতই পূর্বের স্বাভাবিক অবস্থায় ফেরত যাচ্ছে, কিন্তু এ মিথ্যে। মহান অ্যাব্রাহাম লিংকনের পবিত্র মূর্তির পাশে বসে তিনি এসব কথা বলে আত্মপ্রসাদ লাভ করতে পারেন। কিন্তু বাস্তব তা নয়। লিংকনের যুদ্ধ ছিলো একটি বিভক্ত জাতিকে ঐক্যবব্ধ করা। অথচ ট্রাম্প আছেন তার নিজের দোদুল্যমনতার মধ্যেই। জনগণ নিজের জীবন নিয়েই শংকিত, ট্রাম্পের দ্বিধা দেখার সময় তাদের নেই। ট্রাম্প নেতৃত্বের যোগ্যতা হারিয়েছেন।

সম্ভবত ট্রাম্পের পক্ষে আর আমেরিকাকে পূর্বের স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনার সুযোগ নেই।

(সিএনএন থেকে অনূদিত)
অনুবাদক: কানাডায় জিওটেকনিক্যাল বিভাগে কর্মরত।

সর্বশেষ

ফেসবুকে আনন্দ খোঁজা নিছক মেকি বা প্রহসনের নামান্তর

নজরুল ইসলাম তোফা:: প্রেম, পুলক, উল্লাস, আহ্লাদ, পূর্ণতা, পরিতোষ প্রভৃতি একক, একাধিক বা সম্মিলিত অণুভুতিকে আনন্দ/সুখ বলে। জীববিদ্যা, মনঃস্তত্ত, ধর্ম ও দর্শনে...

এবার মুন্সীগঞ্জে নৌকার প্রার্থীকে সমর্থন দিলেন মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবার

কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ: এবার মুন্সীগঞ্জে নৌকার প্রার্থীকে সমর্থন দিলেন মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবার। আসন্ন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষ্যে পৌর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ও...

মুন্সীগঞ্জে ব্যবসায়ী হত্যার বিচার পাওয়া তো দুরের কথা, জীবন নিয়েই শঙ্কায়

কাজী দীপু মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানের ব্যবসায়ী মজিবুর রহমান খান হত্যা মামলার আসামী আইয়ুব খান ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী বাদীপক্ষ ও স্বাক্ষীদের প্রতিনিয়ত...

বাগেরহাটে হতদরিদ্রদের মাঝে গরু বিতরন

বাগেরহাট প্রতিনিধি: বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলায় হতদরিদ্রদের মাঝে গরু(বকনা) বিতরন করেছে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ওয়ার্ল্ডভিশন বাংলাদেশ । রবিবার দুপুরে সরকারী সিএস পাইলট মডেল...

মোংলা বন্দরে বিদেশি জাহাজ দুর্ঘটনার শিকার, দায় কার?

বাগেরহাট প্রতিনিধি: মোংলা বন্দরের জেটিতে দুটি বিদেশি জাহাজ দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে। শনিবার (২৩ জানুয়ারি) রাতে বন্দর জেটিতে প্যানাডার (রাবার বা কাঠজাতীয় প্রটেকশন)...