36 C
Dhaka
Monday, January 25, 2021
No menu items!

এক কীর্তিমান পুরুষের তিরোধান

এমন একটি দুঃসংবাদের জন্য আমরা মোটেই প্রস্তুত ছিলাম না। করোনার এই ভয়াবহ সংকটকালে তাঁর মতো একজন কর্মবীরের যখন ভীষণ প্রয়োজন, তখনই মৃত্যু তাঁকে আমাদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে গেল। গত মঙ্গলবার যখন অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর মৃত্যুসংবাদ গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ল, দেশবাসী শোকে মুহ্যমান হয়েছে, মুষড়ে পড়েছে বেদনায়। (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন)। তিরোধানের সময় তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর। এই চরম সংকটময় দিনে তাঁর পরামর্শ যখন অত্যন্ত প্রয়োজন, সে সময়ে তাঁর এ হঠাৎ চলে যাওয়া জাতির জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি।

একজন কীর্তিমান পুরুষ ছিলেন জামিলুর রেজা চৌধুরী। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ছিলেন সফল। ব্যর্থতা তাকে যেন স্পর্শই করতে পারেনি। ছাত্রজীবনে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখে পেরিয়েছেন একেকটি শিক্ষাস্তর। তেমনি কর্মজীবনে রেখেছেন অসামান্য মেধা, দক্ষতা ও মননশীলতার স্বাক্ষর। শিক্ষাজীবন শেষে শিক্ষকতাকেই বেছে নিয়েছিলেন পেশা হিসেবে। একজন সফল শিক্ষকের দৃষ্টান্ত রেখেছেন তিনি। বুয়েটের শিক্ষক থেকে ভাইস-চ্যান্সেলর, কিংবা সর্বশেষ এশিয়া-প্যাসিফিক ইউনিভার্সিটির ভাইস-চ্যান্সেলর, সবখানেই তিনি ছিলেন একজন নিবেদিতপ্রাণ শিক্ষকের প্রতিমূর্তি। শিক্ষকতার পাশাপাশি জাতীয় উন্নয়ন-অগ্রগতিতেও অবদান রেখে গেছেন তিনি সমান তালে। জাতির প্রয়োজনে সাড়া দিয়েছেন নির্দ্বিধায়, নিঃশঙ্কচিত্তে। আর তাই ১৯৯৬ সালের তত্ত¡াবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা হিসেবে তিনি নিরপেক্ষতা এবং দক্ষ প্রশাসকের উদাহরণ সৃষ্টি করেছেন। দেশের যেসব মেগা প্রজেক্ট আজ জাতিকে আশার আলো দেখাচ্ছে, তার প্রতিটির সঙ্গে জড়িয়েছিলেন জামিলুর রেজা চৌধুরী। যমুনা বঙ্গবন্ধু সেতু, ঢাকার এ্যালিভেটেড এ·প্রেস ওয়ে, মেট্রোরেল কিংবা পদ্মাসেতু, সব কাজের সাথে ছিল তার নিবিড় সম্পর্ক। কোথাও উপদেষ্টা হিসেবে, কোথাও পরামর্শক হিসেবে তাঁর সরব উপস্থিতি প্রকল্পকে করে তুলেছে সবল-সচল।

অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরীর গুণগ্রাহীর সংখ্যা অনেক। একবার যিনি এই স্বল্পভাষী, নিরহংকার ও বিনয়ী মানুষটির সান্নিধ্যে এসেছেন, তিনি তাঁর ভক্তে পরিণত হয়েছেন। তাঁর মৃত্যুর পরে সেসব গুণমুগ্ধ ব্যক্তিরা তাদের শোকানুভ‚তি প্রকাশ করেছেন গণমাধ্যমে। শিক্ষাবিদ ও লেখক অধ্যাপক সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম তাঁকে অভিহিত করেছেন ‘এক জোতির্ময় মানুষ’ হিসেবে। বলেছেন, তাঁর সঙ্গে কিছুটা সময় কাটানোও ছিল আনন্দদায়ক অভিজ্ঞতা। আর অবসরপ্রাপ্ত এয়ার কমডোর ইশফাক ইলাহী চেধুরী মরহুম জামিলুর রেজা চৌধুরীকে আখ্যায়িত করেছেন ‘ঝরে যাওয়া নক্ষত্র’ হিসেবে। তাদের কারোর আখ্যা বা মন্তব্যে অতিরঞ্জনের কিছু নেই। বরং তিনি যেমন ছিলেন তার সামান্যই উঠে এসেছে এসব গুণী মানুষের মন্তব্যে। কারণ জামিলুর রেজা চৌধুরী তেমন মানুষ ছিলেন, যাঁদের সম্পর্কে নির্দ্বিধায় মন্তব্য করা যায়- ‘তোমার কীর্তির চেয়ে তুমি যে মহান’।

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর ‘যেতে নাহি দিব’ কবিতায় বলেছেন-‘এ স্বর্গ মর্ত্য চরাচর ছেয়ে, সবচেয়ে পুরাতন কথা সবচেয়ে/ যেতে নাহি দিব হায়, তবু যেতে দিতে হয়, তবু চলে যায়’। জামিলুর রেজা চৌধুরী হঠাৎ করে আমাদেরকে ছেড়ে চলে যাবেন এটা আমরা ভাবতেও পারিনি। কিন্তু বয়সের তুলনায় অত্যন্ত সুস্বাস্থ্যের অধিকারী জামিলুর রেজা চৌধুরীর পক্ষে আল্লাহর বিধান এড়ানো যে সম্ভব ছিল না। তাই সৃষ্টির অমোঘ নিয়মেই তিনি এ নশ্বর পৃথিবীকে বিদায় জানালেন। পেছনে রেখে গেলেন একটি সফল জীবনের ইতিহাস।

বড় দুঃসময়ে জাতিকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে চলে গেলেন তিনি। সমস্যা-সংকটে ভরসাস্থল হিসেবে সামনে গিয়ে দাঁড়ানোর মতো আরো একজন মানুষকে আমরা হারালাম। তাঁর এ চলে যাওয়া জাতির জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি। তাঁর তিরোধানে যে শূন্যতার সৃষ্টি হলো, তা কবে পূরণ হবে বা আদৌ হবে কীনা আমরা জানি না। তবে, তাঁকে অনুসরণ করে আমাদের আগামী প্রজন্ম যদি শিক্ষা, গবেষণা, কর্মকৌশল এবং দেশাত্মবোধে তাঁরই মতো দেশ ও জাতির কল্যাণে আত্মনিয়োগ করে, তাহলেই এ ক্ষতির কিছুটা লাঘব হতে পারে। একই সাথে তাঁর প্রতি দেখানো হবে প্রকৃত সম্মান ও শ্রদ্ধা। আমরা অধ্যাপক জামিলুর রেজা চ্যেধুরীর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।

সর্বশেষ

মন্ত্রিসভায় ‘বয়লার আইন, ২০২০’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিউজ ডেস্ক: কল-কারখানায় বয়লার দুর্ঘটনার ঝুঁকি কমাতে ‘বয়লার আইন, ২০২০’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। বয়লার থেকে নিবন্ধন নম্বর অপসারণ, পরিবর্তন,...

দীর্ঘদিন পর প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে মন্ত্রিসভা বৈঠক অনুষ্ঠিত

নিউজ ডেস্ক: করোনা ভাইরাস মহামারির প্রকোপ কমে যাওয়ার মধ্যে দীর্ঘদিন পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম মন্ত্রিসভা বৈঠকে কয়েকজন...

হোয়াইটওয়াশ উইন্ডিজ, ‘ফুল মার্কস’ পেল তামিম বাহিনী

ক্রীড়া প্রতিবেদক: সবমিলিয়ে ২৬তম কিংবা ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে পঞ্চম সিরিজ জয়টা ঢাকায়ই নিশ্চিত করে এসেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে...

পরিবার নিয়ে নৌকায় করে ভিক্ষা, দিনে আয় ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা

বাগেরহাট প্রতিনিধি: ফাতিমা খাতুনের ভিক্ষা আদায়ের লক্ষ্য শুধু বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবন দেখতে আসা দেশি-বিদেশি পর্যটকদের আকর্ষণ করা। পরিবার নিয়ে নৌকায় করে ভিক্ষা,...

মোংলায় ট্যুরিস্ট কমিউনিটি পুলিশিং সভা অনুষ্ঠিত

বাগেরহাট প্রতিনিধি: মোংলার সুন্দরবন পিকনিক ষ্পর্ট কর্নারে ট্যুরিস্ট কমিউনিটি পুলিশিং সভা সোমবার সকাল ১১ টায় অনু্ষ্িঠত হয়েছে। ট্যুরিস্ট কমিউনিটি পুলিশিং সভায় বক্তারা...