36 C
Dhaka
Tuesday, September 29, 2020
No menu items!
More

    সুযোগ হলে একদিন বাংলাদেশে উড়াল দিবো: ভারতীয় নাগরিক “অনন্যা বিশ্বাস”

    কথোপকথন পর্ব-২

    শিক্ষিকা অনন্যা বিশ্বাস। ভারতের পূর্ব বর্ধমানে কেতুগ্রাম গার্ল জুনিয়র হাই স্কুলে শিক্ষকতা করছেন তিনি। শিক্ষকতার পাশাপাশি অবসর সময়ে রবীন্দ্র সঙ্গীত চর্চা করেন এবং আর্ট করতে ভালোবাসেন। সুযোগ পেলে ট্যুর দিতে পছন্দ করেন। অনন্যা বিশ্বাস, বর্ধমান ইউনিভার্সিটি থেকে জিওগ্রাফি নিয়ে অনার্স, কলকাতা ইউনিভার্সিটি থেকে জিওগ্রাফি নিয়ে মাষ্টার্স এবং বি.এড করেছেন বর্ধমান ইউনিভার্সিটি থেকে। গ্রামের বাড়ী ভারতের পশ্চিম বঙ্গের হুগলি জেলায়, বর্তমানে স্ব-পরিবারে কলকাতায় থাকেন।

    অনন্যা বিশ্বাস, তার জীবনের অভিজ্ঞতা এবং এপার বাংলা-ওপার বাংলা নিয়ে কথা বলছেন ‘লেখক এবং সাংবাদিক মোহাম্মদ ইউনুস’ এর সাথে।

    তাদের কথোপকথন হুবহু তুলে ধরছি…

    প্রশ্নঃ কেমন আছেন?
    –মোটামোটি ভালো, খারাপ নয়। তবে করোনার এমন পরিস্থিতিতে কেউ ভালো নেই বললেই চলে।

    প্রশ্নঃ আচ্ছা, ভারতে লকডাউনের অবস্থা কেমন? সরকারি-বেসরকারি অফিস কি সব চালু হয়েছে?
    –কিছু সরকারি-বেসরকারি অফিস চালু হয়েছে; তবে ছাত্র-ছাত্রীর সুরক্ষার্থে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো এখনো বন্ধ।

    প্রশ্নঃ তাহলে আপনি তো এখন অবসরে আছেন? কিভাবে কাটাচ্ছেন অবসরের দিন গুলো?
    –কিছু প্রোগ্রাম এবং সেমিনারে এটেন্ড করছি, বিকাল বেলা নিয়মিত বই পড়ছি, আর মাঝে মধ্যে মনকে ফ্রেশ করার রবীন্দ্রনাথ সংগীত চর্চা করি, ডিপ্রেশনে ভুগলে মনকে ভালো করার জন্য গান শুনি এবং সুযোগ পেলে ছবি আর্ট করি।

    প্রশ্নঃ শিক্ষা জীবন কি শেষ?
    –পড়াশুনা শেষ বলে কিছু নেই; সারাজীবন স্টাডি করা যায়, এখনো অনেক কিছু শিখার বাকি আছে। অভিজ্ঞতা আর বাস্তবতার মুখোমুখি হয়ে জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করছি..
    উদাহরণ স্বরূপ লকডাউনের পূর্ববর্তী এক রকম ভাবনা ছিল, লকডাউন চলাকালীন ভিন্ন চিন্তা ধারা এবং লকডাউনের পরবর্তী আবার চিন্তা-ভাবনার পরিবর্তন ঘটবে, এসবই শিক্ষা।

    প্রশ্নঃ এমন কোন স্বপ্ন আছে যা কখনোই পূরণ হয়নি?
    — স্বপ্ন তো অনেক থাকে, সব স্বপ্ন কখনো সবার পূরণ হয়না, পেইন্টার হওয়ার স্বপ্ন ছিল, শিক্ষিকা হয়েছি। বিগত ছয় বছর ধরে শিক্ষকতা করছি, খুব ভালো লাগে আমার শিক্ষকতা করতে। শিক্ষকতা কে পেশা হিসেবে দেখলে হবে না, শিক্ষক হচ্ছে মানুষ গড়ার কারিগর। তাই আমি আমার ভালোবাসা দিয়ে চেষ্ঠা করি আমার ছাত্রদের সঠিক শিক্ষা দিতে।

    প্রশ্নঃ বাংলাদেশ সম্পর্কে কেমন ধারণা?
    –বাংলাদেশ আমাদের প্রতিবেশী দেশ। বাংলাদেশ এবং পশ্চিম বঙ্গের মধ্যে আলাদা কিছু খোঁজে পায়নি। দুইটাই চিরসবুজে ঘেরা নদীমাতৃক দেশ। তাছাড়া আমার পূর্বপুরুষের দেশ বাংলাদেশ।

    প্রশ্নঃ পূর্ব পুরুষের দেশ বলতে বিস্তারিত বলুন?
    –আমার পূর্বপুরুষের জন্ম ভিটা বাংলাদেশের যশোর জেলায়, বাবার মুখে শুনেছি। বাবার মুখে আরো শুনেছি, বাংলাদেশের লোক খুব ভালো মনের হয়, অতিথি পরায়ন হয়। সবাইকে খুব সহজে আপন করে নিতে জানে। আমার এই বিষয় গুলো খুব ভালো লাগে, বাবার মুখে বাংলাদেশের গল্প শুনতে শুনতে বাংলাদেশকে ভালোবেসে ফেলেছি। খুব যেতে ইচ্ছে করে বাংলাদেশে।

    প্রশ্নঃ বাংলাদেশে আসার কোন প্ল্যান আছে?
    –হ্যা, অবশ্যয়, “সুযোগ হলে একদিন বাংলাদেশে উড়াল দিবো”, আমার অনেক ইচ্ছা আছে বাংলাদশে যাওয়ার।

    প্রশ্নঃ আচ্ছা যদি সুযোগ হয় বাংলাদেশের কোথায় কোথায় ঘুরতে যাবেন?
    –ঢাকা, চট্টগ্রাম, যশোর, বরিশাল এবং নোয়াখালী।

    প্রশ্নঃ আচ্ছা, আমরা জানি ভারত বাংলাদেশের মিত্র, আপনার দৃষ্টিতে কেমন?
    –আমারও তাই মনে হয়, একটা সময় তো ভারত-বাংলাদেশ একছিল, কিন্তু লর্ড ক্লাইভ আলাদা করে দিয়েছিলেন।

    প্রশ্নঃ বাংলাদেশের কোন বিষয়টা খারাপ লাগে?
    –রাজনীতি। বাংলাদেশের কিছু রিলেটিভ এবং বন্ধু-বান্ধব থেকে শুনেছি, বাংলাদেশের রাজনৈতিক অবস্থা তেমন ভালো নয়। তবে আমার কাছে সুষ্পষ্ট কোন ধারণা নেই।

    প্রশ্নঃ আচ্ছা বাংলাদেশের প্রয়াত কোন মহান নেতার নাম শুনেছেন কি?
    –জ্বি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্যার, উনার কথা অনেক শুনেছি, ১৯৭৫ সালে দেশ এবং দেশের মানুষের জন্যে স্ব-পরিবারে খুন হয়েছেন। বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী কি যেন নাম.. বোধয় উনার মেয়ে। উনাকে নিয়ে স্টাডি করার ইচছা আছে আমার।

    প্রশ্নঃ ভারতবর্ষে ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনে কোন বাংলাদেশি নাগরিক (তৎকালীন ভারতীয় নাগরিক) এর অবদান ছিল কি?
    –হ্যা অবশ্যয়, বাংলাদেশের চট্টগ্রাম রাউজানের মাস্টার দ্যা সূর্য্য সেন,পটিয়ার প্রীতিলতা ওয়াদ্দার, চাঁদপুরের রাম কৃষ্ণ এর অবদান অপরিসীম। তাছাড়া সূর্য্য সেন এর স্বরণে কলকাতা মেট্রো বাঁশদ্রোনি মেট্রো স্টেশন টি মাস্টার দ্যা সূর্য্য সেন এর নামে নামকরণ করা হয়েছে।

    প্রশ্নঃ ভারতের বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে কিছু বলুন?
    –বর্তমানে ভারতের অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। নোংরা রাজনীতি, জাতি দাঙ্গা, জাত, পাত, ধর্ম নিয়ে হানাহানি।
    বেকারত্বের হার বেড়ে গেছে। প্রতিদিন কোন নারীকে ধর্ষণ হতে হচ্ছে, মাঝে মাঝে ভাবি নারী হয়ে জন্মেও পাপ করেছি। চোখের সবকিছু ঘটেছে, কিছু করতে পারছি না।
    তাছাড়া চলছে করোনার কারনে ভারতের বর্তমান অবস্থা খুবই শোচনীয়, দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো নয়, চরম বিপদে আছে খেটে খাওয়া মানুষ গুলো।

    প্রশ্নঃ ভারতে করোনার মৃত্যুর হার কেমন?
    –পরিসংখ্যান গতভাবে একজেক্টলি বলতে পারছি না। তবে আক্রান্ত সংখ্যার তুলনায় মৃত্যুর হার অনেক কম, সুস্থ হয়ে উঠেছেন অনেকে।

    প্রশ্নঃ অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে, গ্রামনগর বার্তায় সময় দেওয়ার জন্য। সর্বশেষ প্রশ্ন, গ্রামনগর বার্তার পাঠকদের কিছু বলার আছে?
    –আপনাকেও ধন্যবাদ। আর গ্রামনগর বার্তাকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি আমাকে “কথোপকথন” পর্ব-২ আমাকে যোগ করার জন্য এবং গ্রামনগর বার্তার পাঠকদের প্রতি আমি বলবো এই করোনা মহামারীর সময়ে আপনারা সতর্ক থাকুন, সচেতন হউন, বাসায় থাকুন, ভয়কে জয় করুন, গুজবে কান দিবেন না, এবং সবার আগে সঠিক তথ্য এবং সংবাদ পেতে গ্রামনগর বার্তার সাথে থাকুন।

    ভারতীয় নাগরিক “অনন্যা বিশ্বাসের” সাথে কথা বলছিলেন ‘লেখক এবং সাংবাদিক মোহাম্মদ ইউনুস’।

    সর্বশেষ

    নন্দীগ্রামে ৩ হোটেল মালিকের জরিমানা

    নাজমুল হুদা, নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি ঃ বগুড়ার নন্দীগ্রামে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার রাখার দায়ে ৩ হোটেল মালিকের জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। মঙ্গলবার (২৯...

    সীমান্ত হত্যা, পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ ২ দেশের সম্পর্কে আঘাত হানে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

    নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সম্পর্ক অত্যন্ত দৃঢ়। কিন্তু সীমান্ত হত্যা বা পেঁয়াজ আমদানি বন্ধের মতো কিছু বিষয় এই সম্পর্কের ওপর...

    বিদেশ ভ্রমণের বিশাল আবদার কমিয়ে দিল একনেক

    নিউজ ডেস্ক: জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) মোট চার প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে দু'টি প্রকল্পে...

    ভ্যাকসিন কিনতে বাংলাদেশকে ৩ মিলিয়ন ডলার অনুদান এডিবির

    নিউজ ডেস্ক: করোনা ভ্যাকসিন কেনা ও সরবরাহের জন্য বাংলাদেশকে তিন মিলিয়ন মার্কিন ডলার অনুদান দিয়েছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)।

    এমসি কলেজের ঘটনা অনুসন্ধানে কমিটি করে দিয়েছেন হাইকোর্ট

    নিউজ ডেস্ক: সিলেটের এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে নববধূকে গণধর্ষণের ঘটনা অনুসন্ধানে একটি কমিটি করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। ১৫ দিনের মধ্যে এই কমিটিকে প্রতিবেদন দাখিল...