36 C
Dhaka
Monday, November 30, 2020
No menu items!
More

    স্বাগতম বাংলা নববর্ষ

    আরেকটি নতুন বছরে আমরা পা রাখলাম। গতকাল পশ্চিম দিগন্তে সূর্য অস্তমিত হওয়ার সাথে সাথে ২০২৬ বঙ্গাব্দের পরিসমাপ্তি ঘটেছে। নানা ঘটনা-দুর্ঘটনা, সাফল্য-অসাফল্য, দুঃখ-বেদনা, আশা-হতাশার স্বাক্ষী হয়ে বছরটি কালের অতল গহ্বরে চিরকালের মতো হারিয়ে গেল। হয়ে গেল ইতিহাসের সাক্ষী।

    বাংলা সন আমাদের এক সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য। আবহমানকাল ধরে এই জনপদের মানুষ তাদের দৈনন্দিন জীবনাচরে বাংলা সনকে ব্রবহার করে আসছে। আমাদের জাতীয় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের অবিচ্ছেদ্য অংশ এ বাংলা সন। যদিও দৈনন্দিন ক্রিয়াকর্মে আমরা এখন খৃষ্টীয় সনের ব্যবহারে অভ্যস্ত। তবে, তাতে বাংলা সনের গুরুত্ব এতটুকু কমেনি। এখনও বাঙালির জনজীবনে বাংলা সনের প্রভাব অনস্বীকার্য। ফলে বাংলা নববর্ষ এক অনাবিল আনন্দের পসরা নিয়েই প্রতি বছর আমাদের দ্বারে করাঘাত করে থাকে।

    বাংলা নববর্ষ আমাদের সংস্কৃতির অন্যতম অনুষঙ্গ। এ দিনটিকে ঘিরে এদেশের মানুষ মেতে ওঠে এক অপার্থিব আনন্দে। গ্রামে -গঞ্জে এ উপলক্ষে বসে মেলা। বৈশাখী মেলা নামের সে মেলা পরিণত হয় সবর্বস্তরের মানুষের মিলনমেলায়। সেখানে বসে রকমারী জিনিসের দোকান। নারী পুরুষ শিশু নতুন জামা কাপড় পড়ে মেলায় যায় নতুন জিনিস কিনতে। আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু -বান্ধব, পাড়া প্রতিবেশীর বাড়িতে মিষ্টি পাঠিয়ে শুভেচ্ছা জানায় অনেকে নতুন বছরের। নববর্ষের শুভেচ্ছা কার্ডও বিতরণ করা হয় এ উপলক্ষে। রাজধানী ঢাকায় রমনা বটমূলে সাংস্কৃতিক ছায়ানটের বর্ষ বরণ অনুষ্ঠান আমাদের চিরায়ত ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে। সে শিল্পীদের কণ্ঠে ‘এসো হে বৈশাখ, এসো এসো’ গান মনে করিয়ে দেয় নতুন বছরের আগমনের কথা। এছাড়া ঋষিজ শিল্পী গোষ্ঠী প্রতি বছর শাহবাগের নারিকেল বিথী চত্বরে আয়োজন করে সঙ্গীতানুষ্ঠানের। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থীদের আয়োজনে বকুলতলা থেকে বের হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা। মোট কথা এ দিনে গোটা বাংলাদেশ মেতে ওঠে নতুন বছরকে বরণ করে নেয়ার অনাবিল আনন্দে।

    কিন্তু এবার পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন। প্রাণঘাতী ব্যধি করোনার প্রকোপে বিশ্বের আর সব দেশের মতো বাংলাদেশও আক্রান্ত। সংক্রমণ রোধে তাই নিষিদ্ধ করা হয়েছে সব ধরনের জনসমাগম। ফলে এবার আর ফি বছরের মতো চিরাচরিত প্রথায় বর্ষবরণ হচ্ছেনা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবাইকে যার যার ঘরে অবস্থান করেই নববর্ষ বরণের জন্য পরামর্শ দিয়েছেন। আমরা মনে করি, ভয়াবহ এ ব্যধি থেকে নিজেদেরকে রক্ষাকল্পেই আমাদের উচিত সংযত আচরণ করা। নববর্ষ আবারও আসবে। সম্পূর্ণ সুস্থ পরিবেশে সেদিন আমরা আমাদের প্রিয় বাংলা নববর্ষকে বরণ করে নেবো আনন্দ-উচ্ছ্বাসের মধ্য দিয়ে।

    আজকের এ শুভদিনে আমরা সবাইকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। সব সঙ্কট কাটিয়ে সবার জীবনে ফিরে আসুক স্বস্তি, সবার ঘরে প্রবাহিত হোক শান্তি-সুখের অমিয় ধারা। নতুন বছরটি আমাদের জীবনে বয়ে আনুক সমৃদ্ধি ও অগ্রগতির বার্তা। শুভ নববর্ষ।

    সর্বশেষ

    বিশ্বকাপে ফ্রান্সকে হারানো সেনেগালের সেই নায়কের মৃত্যু

    খেলাধুলা ডেস্ক: বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হিসেবে ২০০২ বিশ্বকাপে পা রেখেছিল ফ্রান্স জাতীয় দল। দলে জিনেদিন জিদান, থিয়েরি অঁরি, প্যাট্রিক ভিয়েরা, লিলিয়ান থুরামের মতো খেলোয়াড়েরা।

    করোনাকালে দোহা বিমানবন্দরে অন্য রকম এক ফুটবল–ভ্রমণ

    নিউজ ডেস্ক: দোহা বিমানবন্দরে দাঁড়িয়ে তাঁরা দিব্যি হিন্দি বলে চলেছেন। ‘এধার মে আও, পাসপোর্ট দেখাইহঙ্গে’–জাতীয় হিন্দি শুনে থমকে দাঁড়ান যাত্রী।

    নাইজেরিয়ায় ধানক্ষেতে ১১০ কৃষককে হাত-পা বেঁধে ‘জবাই’

    নিউজ ডেস্ক: নাইজেরিয়ার ধানক্ষেতে কাজ করার সময় অতর্কিত হামলা চালিয়ে অন্তত ১১০ কৃষককে হত্যা করা হয়েছে। মোটরসাইকেলে করে এসে জঙ্গিরা কৃষকদের হাত-পা...

    করোনায় ভ্রমণ করুন নিয়ম মেনে

    নিউজ ডেস্ক: করোনার কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর খুলে দেয়া হয়েছে কক্সবাজার, সেন্টমার্টিন, সুন্দরবনসহ দেশের প্রায় সব পর্যটনকেন্দ্র। তবে ভ্রমণে মানতে হবে...

    সাইবার বুলিং বাড়ছে, এক মাসে সাড়ে ১৭ হাজার অভিযোগ

    নিউজ ডেস্ক: দেশে সাইবার বুলিং ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এই সাইবার অপরাধের যারা শিকার হচ্ছেন তাদের অধিকাংশই নারী। সিআইডির সদর দপ্তর সূত্র...